জ্বালানি তেলের বাজারের ধস

টানা দাম বাড়ার পর শেষ দুই সপ্তাহে কমেছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য এক লাফে ব্যারেলপ্রতি আরও ১০ ডলার কমেছে।

২০২০ সালের এপ্রিলের পর শুক্রবার সবচেয়ে বড় দরপতন হয় আন্তর্জাতিক বাজারে। খবর রয়টার্সের।

করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ার পরই হঠাৎ করে জ্বালানি তেলের দরপতন হয়।
 
করোনার এ নতুন ধরনের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের মূল্য আরও কমে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শুক্রবার প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের মূল্য ছিল ৭২.৭২ ডলার, যা গত সপ্তাহের চেয়ে ৮ শতাংশ কম।

এর আগে ব্যারেলপ্রতি দাম ৮৫ ডলার ছাড়িয়ে গিয়েছিল। বর্তমানে ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডব্লিউটিআই) ও ব্রেন্ট অপরিশোধিত তেলের দর গত ছয় সপ্তাহের মধ্যে সবচেয়ে কম।

এর আগে গত ১৯ নভেম্বর আরেক দফা কমেছিল আন্তর্জাতিক বাজারে। তখন ৮৫ ডলার থেকে কমে ৭৯ ডলারে নেমে আসে।

যুদ্ধ, জাতীয় নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বিভিন্ন দেশ তেলের মজুদ রাখে। এটি ‘কৌশলগত জ্বালানি মজুদ’ বা SPR নামে পরিচিত। বাইডেন প্রশাসন ওই মজুদ থেকেই প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে সীমিত লাভে তেল বিক্রি করবে। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি ১ কোটি ৮০ লাখ ব্যারেল বাজারে ছাড়া শুরু করবে ওয়াশিংটন।

বাজার স্থিতিশীল করার লক্ষ্যে চীন, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও ব্রিটেনের মতো দেশগুলোকেও যুক্তরাষ্ট্র তেল ছাড়ার অনুরোধ জানিয়েছে। যাতে, সাড়া দিয়েছে ওই দেশগুলো।

অক্টোবরেই বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম ছিল ব্যারেল প্রতি ৮৬ ডলার। যা গেলো তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।