ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উত্তেজনা, হাতাহাতি

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলনে ছাত্রলীগ ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এরপর দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩জুলাই) দুপুরে তৃতীয় দিনের মতো টানা চলমান আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের মলচত্বর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, সাত কলেজের সমস্যার স্থায়ী সমাধান করে ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে অপরাজেয় বাংলায় সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। সমাবেশ শেষে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে মিছিল নিয়ে প্রশাসনিক ভবনে উপ-উপাচার্যকে স্মারকলিপি দিতে যায় ছাত্রলীগ।

কিন্তু প্রশাসনিক ভবনের গেটে তালা দিয়ে আগে থেকে অবস্থান নেয়া সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা শুরু হয় ছাত্রলীগের। এ সময় ছাত্রলীগের একটি অংশ মল চত্বরে ডাকসুর সমাজসেবাবিষয়ক সম্পাদক আকতার হোসেনের ওপর হামলা চালায়। অন্যরা প্রশাসনিক ভবনের গেটের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন।

ভিপি নুর ছাত্রলীগ কর্মীদের এমন আচরণের প্রতিবাদ জানান। তিনি এ সময় ছাত্রলীগের উত্তেজিত নেতাকর্মীদের থামতেও বলেন। এ ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। পরে জিএস গোলাম রাব্বানী নেতাকর্মীদের ঠাণ্ডা করে এ বিষয়ে আলোচনা করতে সবাইকে ডাকসুতে নিয়ে যান।

ভুক্তভোগী আকতার হোসেন অভিযোগ করেন, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়েছে। শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও বিশ্ববিদ্যালয় লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী রাব্বি হকের নেতৃত্বে এ হামলা চালানো হয়।

তবে হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে রাব্বি হক বিষয়টি অস্বীকার করেন।

ছাত্রলীগের প্রতিনিধিরা এ মুহূর্তে ঢাবি উপ-উপাচার্যের কার্যালয়ে আলোচনায় বসেছেন। অন্যদিকে আকতার সহ-সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করছেন কিছু শিক্ষার্থী।