রাজশাহীতে অধ্যক্ষ লাঞ্ছিত: গ্রেপ্তার ৯, ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত

রাজশাহী পলিটেকনিকে অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদউদ্দিন আহম্মেদকে জোর করে টেনে হিঁচড়ে পুকুরে ফেলা মামলায় আরো একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এনিয়ে গ্রেপ্তার দাঁড়াল নয় জনে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, রবিবার দিবাগত রাতে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে ও পরে আরো একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তারা হলেন, আসাম কলোনী এলাকার রবিউল ইসলামের ছেলে মেহদী হাসান আশিক (২২), একই এলাকার শাহ আলমের ছেলে মেহদী হাসান হিরা (২৩) ও নগরীর সাধুর মোড় এলাকার নোমানের ছেলে নবীউল উৎস (২০)। এছাড়া নগরীর ছোটবনগ্রাম এলাকার খন্দকার আলমগীরের ছেলে নজরুল ইসলাম (২৩)। তারা সবাই রাজশাহী পলিটেকনিকের শিক্ষার্থী। এর আগে ঘটনার পরের রাতেই আরো পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, তবে মামলায় উল্লেখিত নামের কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। তাদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

এদিকে, ছয়দফা দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করছে রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ক্যাম্পাস চত্বরে এ বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থী।

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো, অভিযুক্ত শিক্ষার্থীদের দ্রুত ও সুষ্ঠ বিচার করতে হবে, তাদের স্থায়ীভাবে ছাত্রত্ব বাতিল করতে হবে, ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করতে হবে, কলেজে বহিরাগত শিক্ষার্থীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে হবে, ক্যাম্পাসে সকলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে, শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। এর আগে এই ঘটনায় শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে ছাত্র রাজনীতি বাতিলের দাবি জানায়। এছাড়া প্রতিবাদ সভা করেছে শিক্ষক-কর্মচারীরা।

এদিকে অধ্যক্ষকে লাঞ্ছিতের ঘটনায় ছাত্রলীগের পলিটেকনিক শাখার যুগ্ম-সম্পাদক কামাল হোসেন সৌরভকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। নগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ জানান, সিসিটিভির ফুটেজে সৌরভকে দেখা গেছে। এইজন্য তার বিরুদ্ধে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের দাবিতে কেন্দ্রীয় কমিটিতে সুপারিশ করা হয়েছিল। তারই প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় কমিটি তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে। এছাড়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট শাখার কমিটিও স্থগিত করা হয়েছে।

ওই দিন সন্ধ্যায় রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে আসে তদন্ত কমিটির সদস্যরা। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তদন্ত  কমিটিকে প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে কারিগরি শিক্ষা অধিদফতর। নগরীর চন্দ্রিমা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গোলাম মোস্তফা বলেন, পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। সেখানে পুলিশ রয়েছে।

প্রসঙ্গত, শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে ইন্সটিটিউটের অধ্যয়নরত ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মীরা অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলে দেয়। এ ঘটনায় সিসিটিভির ফুটেজ দেখে হামলাকারীদের শনাক্ত করেছেন শিক্ষকরা। তবে ছাত্রলীগের দাবি, এই ঘটনায় শুধু ইন্সটিটিউটের ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন সৌরভ ছিল। এই ঘটনায় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।