বাগমারার ৬ পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তা বরখাস্ত

কর্মরত কর্মী তারে জড়িয়ে মৃত্যুর ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে নাটোর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-১ এর বাগমারা জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) রেজাউল করিমসহ ৬ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। 

শনিবার (১৭ আগস্ট) নাটোর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-১ এর জেনারেল ম্যানেজার সোহরাব হোসেন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি আদেশ এমনটা নিশ্চিত হওয়া গেছে। ইতোমধ্যে নোটিশটি রাজশাহীর বাগমারা পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। 

বরখাস্ত হওয়া অন্য কর্মকর্তারা হলেন, একই অফিসের এজিএম (কম) রবীন্দ্র বসাক, জুনিয়র প্রকৌশলী লুৎফর রহমান, মারফত আলীসহ দুই লাইনম্যান। 

উল্লেখ্য , চলতি মাসের ৪ আগষ্ট বাগমারা হটাৎপাড়া গ্রামের তিনটি বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে গিয়ে বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে রিয়াজ উদ্দিন (৫২) মারা যান। এ ঘটনার তিন দিন পর বাগমারা জোনাল অফিসের  ডিজিএম মোঃ রেজাউল করিম স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে প্রতিবাদ পাঠিয়ে দাবি করেন, নিহত রিয়াজ উদ্দিন তাদের কোন কর্মী ছিল না। 

যদিও দূর্ঘটনার দিন তিনি বলেছিলেন রিয়াজ উদ্দিন ছিলেন তাদের নিয়মিত কর্মী। নিজের অনিয়ম, দূর্নীতি ও দায়িত্বে  অবহেলার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে এমনটা দাবি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। রিয়াজের মৃত্যুর তিন দিনের মাথায় নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার সোহরাব হোসেনের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে ঘটনার তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেয়া হয়।

তদন্ত শেষে বাগমারা জোনাল অফিসের ডিজিএম সহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দায়িত্বে গাফলতি, অবহেলা ও দূর্ণীতির বিষয়ে প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওই প্রতিবেদনের আলোকে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিস্বরূপ স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হলো।

নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মো: সোহরাব হোসেন জানান, নিহত রিয়াজ উদ্দিন দীর্ঘদিন পল্লী বিদ্যুতের বাগমারা জোনাল অফিসের দৈনিক মজুরী ভিত্তিতে (খন্ডকালীন লেবার) কাজ করত। সে সড়ক দূর্ঘটরায় পঙ্গুত্ব বরণ করলে তাকে পল্লী বিদ্যুত থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়। তারপর অফিসের কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজসে গোপনে বাড়িতে মিটার স্থাপন করে বিদ্যুত সংযোগ দিতে গিয়ে তার মৃত্যু হয়।

সোহরাব হোসেন আরও জানান, তদন্ত প্রতিবেদনের পরই ৬ কর্মকর্তাকে  তাদেরকে তাৎক্ষনিক বদলি (স্ট্যান্ড রিলিজ) করা হয়েছে। সেইসাথে একটি তদন্ত প্রতিবেদন পল্লী বিদ্যুতের প্রধান কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদনের আলোকে তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তীতে বিভাগীয় শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও তিনি জানান।