কুড়িগ্রামে হাত-পা বাঁধা কিশোরীর লাশ, ধারণা ধর্ষণের পর হত্যা

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে হাত-পা বাঁধা অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করেছে রৌমারী থানা পুলিশ।

শনিবার (১৯ অক্টোবর) রাত ৮টার দিকে উপজেলার চর শৌলমারী ইউনিয়নের উত্তর খেরুয়ার সুখের চর নামক স্থানে কাঁশবনের ভিতর থেকে এই মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত শিক্ষার্থী রৌমারী উপজেলার চর শৌলমারী ইউনিয়নের চর ঘুঘুমারি গ্রামের শাহ আলম প্রামানিকের মেয়ে মমতাজ আক্তার জিম্মি (১৪)। সে পাখিউড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার সকালে বাড়ি থেকে পাখিউড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের যায় জিম্মি আক্তার। এরপর থেকে তাকে আর খুঁজে না পাওয়ায় রৌমারী থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন তার পরিবার। শনিবার বিকালে উত্তর খেরুয়ার সুখেরচর নামক কাঁশবনের ভিতরে লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে রাত ৮টার দিকে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

পরিবারের দাবি তাকে প্রথমে হাত পা বেধে ধর্ষণ করার পর শ্বাসরোধ করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে।

রৌমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু দিলওয়ার হাসান ইনাম জানান, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ (রবিবার) সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।