বগুড়ায় বন্যা মোকাবেলায় তৎপর আনসার সদস্যরা

অস্বাভাবিক বৃষ্টি, পাহাড়ী ঢল ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে হঠাৎ বন্যার কবলে পড়েছে নিম্নাঞ্চলের কয়েকটি জেলা। আশঙ্কায় আছে বগুড়া, শেরপুরসহ আরো কয়েকটি জেলা।

বন্যা যেন ক্ষতি করতে না পারে সে বিষয়ে তৎপর রয়েছে বগুড়ার আনসার সদস্যরা।

বর্তমানে বগুড়ায় যমুনা নদীর সারিয়াকন্দি পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার ১২৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বাঙ্গালী নদীর পানি একটু বৃদ্ধি পেলেও বিপদসীমার ৫০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সারিয়াকন্দি উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসার হাসেম আলী বলেন, আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছি। গত মঙ্গলবার শালিকার চর থেকে একটি পরিবারকে উদ্ধার করে হিন্দুকান্দি গ্রামে ওয়ার্ড আনসার ভিডিপি লিডার আব্দুল মোমিনের বাড়িতে আশ্রয় দেয়া হয়েছে। আনসার ভিডিপি ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড লিডারদের নিদের্শনা দেয়া আছে যে কোন দুর্যোগে তারা যেন মানুষের পাশে থাকে।

 বিগত বন্যার সময় আমাদের কর্মী বাহিনী মানুষের পাশে থেকে বন্যার্তদের উদ্ধার কার্যক্রমসহ সার্বিক সহযোগিতা করেছে, যোগ করেন তিনি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের এস ডি আরিফ আহমেদ জানান, বগুড়ার কোথাও এখনো তেমন বন্যা হয়নি। যমুনা নদীর পানি কমছে। শুক্রবার ৪টায় যমুনার সারিয়াকান্দি পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ১২৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বাঙ্গালী নদীর পানি একটু বৃদ্ধি পেলেও তা বিপদসীমার ৫০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।