তালতলীতে কৃষককে পিটিয়ে জখম

বরগুনার তালতলী উপজেলার কলারং গ্রামে জাল চুরির অপবাদ দিয়ে কৃষক সাগর চন্দ্র মিঠুনকে (৩০) পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে প্রতিবেশী রমেশ রায় ও মিঠু নামের দুই যুবক।

ঘটনা ঘটেছে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায়। আহত মিঠুনকে স্বজনরা উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জানাগেছে, উপজেলার কলারং গ্রামের সাগর চন্দ্র মিঠুন বাড়ীতে কৃষি কাজ করেন। গতকাল রাতে ধানক্ষেতে মাছ শিকারের জন্য ফাঁস জাল ফেলে মিঠুন ও প্রতিবেশী রমেশ রায়। মঙ্গলবার সকালে রমেশ রায় তার জাল খুঁজে পায়নি। এতে রমেশ সন্দেহ করে মিঠুন জাল চুরি করেছে। আজ মিঠুন বাঁশ কিনতে  আড়পাঙ্গাশিয়া বাজারে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে রমেশ ও তার সহযোগী মিঠু কৃষক মিঠুনকে পথে আটকে জাল চুরির অপবাদ দেয়। পরে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে রাস্তায় ফেলে রাখে।

তাদের মারধরে মিঠুন জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। খবর পেয়ে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে ওইদিন দুপুরে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে হাসপাতালে গিয়ে দেখাগেছে, মিঠুনের জ্ঞান ফিরেনি। তার সারা শরীরে রক্তাক্ত জখমের চিহৃ রয়েছে।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আলহাজ্ব হারুন অর রশিদ বলেন, মিঠুনের বাহু, পিঠ, কোমর ও ঘাড়সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত জখমের চিহৃ রয়েছে। মিঠুনকে যথাযথ চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

আহত মিঠুনের ভাই রিপন চন্দ্র বলেন, আমার ভাইকে জাল চুরির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে রমেশ রায় ও তার সহযোগী মিঠু বেধরক মারধর করেছে। আমার ভাইয়ের এখনো জ্ঞান ফিরেনি। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

রমেশ রায় মারধরের কথা স্বীকার করে বলেন, মিঠুন আমার জাল চুরি করেছে।

তালতলী থানার ওসি শাহানুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।