বগুড়ায় আছাড় দিয়ে ছাত্রের পা ভেঙে দিল কওমি হুজুর

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় আসিফ নামে ৮ বছরের এক শিশু শিক্ষার্থীকে উপর থেকে আছার মেরে ফেলে দিয়ে পা ভেঙে দিয়েছে মাদ্রাসা হুজুর সাইফুল ইসলাম। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত পলাতক রয়েছে।

আসিফ উপজেলার পোয়ালগাছা নুরানী কওমী মাদ্রাসার ছাত্র এবং একই গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) বেলা ১১টার দিকে আসিফ অন্যান্য ছাত্রদের সাথে খেলা করছিল। এসময় হুজুর সাইফুল ইসলাম অসময়ে খেলা ও দুষ্টুমীর অপরাধে দু হাতে আসিফকে উঁচু করে পাকা ঘড়ের মেঝেতে ফেলে দেয়। আঘাত লেগে আসিফের পা ভেঙে যায় ও মুখ দিয়ে রক্ত ঝরতে থাকে। এ ঘটনা জানাজানি হলে এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে মাদ্রাসায় আসতে থাকে। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে ওই হুজুর পালিয়ে যায়।

আসিফ জানায়, সে সকলের সাথে খেলা করছিলাম। এ সময় হুজুর সাইফুল এসে তার মুখ ও মাথা শক্ত করে ধরে উচু করে পাকার উপর ফেলে দেয়। এতে করে আঘাত লেগে পা ভেঙে যায় ও মুখ দিয়ে রক্ত ঝরতে থাকে।

এ ঘটনার পর থেকে মাদ্রাসার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে পাওয়া যায়নি। তবে পোয়ালগাছা নুরানী কওমী মাদ্রাসার মহাতামিম বেলাল হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনার পর থেকে হুজুর সাইফুল পলাতক রয়েছে এবং এই অপরাধে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

শাজাহানপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিম উদ্দিন বলেন, হুজুরের নির্যাতনে মাদ্রসা ছাত্রের পা ভাঙার কোনো অভিযোগ এখনও পাইনি, অভিযোগ পেলে তদন্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।