মোবাইলে প্রেম, গুরুদাসপুরে কিশোরীকে আটকে রেখে গণধর্ষণ

নাটোরের গুরুদাসপুরে মোবাইল ফোনে প্রেমের সূত্র ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ডেকে নিয়ে এক কিশোরীকে ১০ দিন আটকে রেখে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে কথিত প্রেমিক রাসেল (২৫) ও তার বন্ধু অন্তু বিশ্বাসের (২২) বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাসেলের সাথে মোবাইলে সম্পর্ক হয় ওই কিশোরীর। পরে তাকে বিয়ের প্রলোভনে নানা নিজের নানা বাড়িতে ডেকে নেয় রাসেল। এরপর সেখানে আটকে রেখে লাগাতার ধর্ষণ করে। ঘটনার ৮ দিনের মাথায় বন্ধু অন্তুকে ডেকে নিয়ে ওই মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করায় সে।

পরে ভিকটিম জানতে পারে মাদকাসক্ত রাসেলের স্ত্রী সন্তান রয়েছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার সন্ধার দিকে প্রেমিক রাসেল জোরপূর্বক তাকে ভ্যানে তুলে বাড়িতে পাঠানোর চেষ্টা করলে মেয়েটি চিৎকার করতে থাকে। চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা মেয়েটির প্রেমিক রাসেলকে গণধোলাই দিয়ে দুজনকে গুরুদাসপুর থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোজাহারুল ইসলাম জানান, খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকাকে আটক করা হয়। দুই বন্ধু রাসেল এবং অন্তু বিশ্বাসকে জিজ্ঞাসাবাদের পর ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। আজ শনিবার দুই বন্ধুকে ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে নাটোর জেলখানায় প্রেরণ করা হয়েছে।