কবিরহাটে ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা

নোয়াখালীর কবিরহাট পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের ইন্দ্রপুর এলাকায় জায়গা জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সিদ্দিক উল্যা (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। 

মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) জেলা শহর মাইজদীর একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই ব্যবসায়ীয় মৃত্যু হয়। 

নিহত সিদ্দিক উল্যা ইন্দ্রপুর গ্রামের মৃত আশরাফ আলী মুন্সির ছেলে।

জানা যায়, নিহত সিদ্দিক উল্যার জেঠাতো ভাই ও একই বাড়ির আব্দুল কাইয়ুমের সাথে বাড়ির রাস্তা দখল করে একটি ঘর নির্মাণ করছিল। সিদ্দিক উল্যা গত ২৫ মার্চ বুধবার সকালে রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ করার প্রতিবাদ করলে তাকে হত্যা করার হুমকি দেয় আব্দুল কাইয়ুম ও তার ছেলে। সিদ্দিক উল্যাকে হত্যা করার জন্য প্রয়োজনে ৫ লাখ টাকা খরচ করবে বলেও হুমকি দেয় কাইয়ুম। ওইদিনই দুপুরে স্থানীয় ঘাট মাঝির বাজারে নিজের চা দোকানে কাজ করছিলেন সিদ্দিক উল্যা। এ সময় আব্দুল কাইয়ুম ও ছেলে গিয়াস উদ্দিন সুমনের নেতৃত্বে কয়েকজন এসে সিদ্দিক উল্যার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলাকারীরা সিদ্দিক উল্যাকে দোকান থেকে টেনে রাস্তা উপর এনে এলোপাথাড়ি পিটাতে থাকে। এসময় সিদ্দিক উল্যার ছেলে আল আমিন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা তাদের দু'জনকে পিটিয়ে জখম করে রাস্তায় ফেলে চলে যায়।

পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় আহত সিদ্দিক উল্যা ও আল আমিনকে উদ্ধার করে কবিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে পরিবারের লোকজন। সিদ্দিক উল্যার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২৬ মার্চ সকালে তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ও বিকেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য মাইজদী সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজ মঙ্গলবার ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সিদ্দিক উল্যা।

কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মির্জা মোহাম্মদ হাছান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় গত ২৮ মার্চ নিহতের ছোট ভাই নূর উদ্দিন বাদী হয়ে ৫জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছিলেন। ওই মামলাটি বর্তমানে হত্যা মামলায় নথিভুক্ত করা হবে। অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।