বগুড়ায় ইটের গুঁড়া ও গোখাদ্য দিয়ে তৈরি হচ্ছে গুঁড়া হলুদ, ২ জনকে কারাদণ্ড

সারাদেশে করোনাভাইরাস নিয়ে যখন সবাই ব্যস্ত এই সুযোগে বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের শহরতলীতে এক অসাধু ব্যবসায়ী ভেজাল খাদ্য তৈরিতে ব্যস্ত। ওই অসাধু ব্যবসায়ী হলুদের গুঁড়া তৈরিতে ব্যবহার করছে ইটের গুঁড়া, গরুর খাবারসহ নানান ভেজাল ক্ষতিকারক উপাদান। বিষয়টি জানতে পেরে পরে দুই ব্যবসায়ীকে কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের শহরতলীতে একটি কারখানায় ভেজাল হলুদের গুঁড়া তৈরি হচ্ছে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীর কবির ও থানা পুলিশের সহযোগীতায় ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে দেখতে পায় ওই ব্যবসায়ী গো খাদ্য, ইটের গুড়া ও নানান উপাদান দিয়ে ভেজাল হলুদের গুঁড়া তৈরি করছে। 

তাৎক্ষনিক ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযুক্ত দুই ব্যক্তিকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর ৪২ ধারা মোতাবেক ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয় এবং ভেজাল হলুদ তৈরির কারখানাটি বন্ধ করে দেয়া হয়। 

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবির বলেন, ভেজাল খাদ্য তৈরির অপরাধে ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকার আইনে ২ জনকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয় এবং ভেজাল হলুদ তৈরি কারখানাটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জনগনকে সচেতন থাকতে হবে যাতে কেউ ভেজাল খাদ্যদ্রব্য না তৈরি করতে পারে।