কমলগঞ্জে ৪ বাড়ি লকডাউন

করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া রোগীর গ্রাম থেকে বেড়াতে আসায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের পতনউষার ইউনিয়নের পতনউষার (উত্তর) গ্রামের চারটি বাড়ি লকডাউন করেছে স্থানীয় প্রশাসন। 

সোমবার (৬ এপ্রিল) বিকালে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশেকুল হকের নেতৃত্বে এ লকডাউন করা হয়।

কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনসহ স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কমলগঞ্জের সীমান্তবর্তী রাজনগর উপজেলার টেংরা ইউনিয়নের আকুয়া গ্রামে মারা যাওয়া সেঞ্চু মিয়া করোনা আক্রান্ত ছিলেন। আকুয়া গ্রাম থেকে গত ৩ দিন আগে পতনউষার ইউনিয়নের পতনউষার (উত্তর) গ্রামের শায়েস্তা মিয়ার বাড়িতে স্ত্রী সন্তানসহ বেড়াতে আসেন সেঞ্চু মিয়ার জামাতা মনসুর মিয়া। এ খবর জানাজানি হলে সোমবার বিকালে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশেকুল হক এর নেতৃত্বে মেডিক্যাল টিমসহ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান পতনউষার (উত্তর) গ্রামে যান। 

সেখানে গিয়ে শায়েস্তা মিয়ার বাড়িতে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে আগতদের সাথে কথা বলে জানতে পারেন তারা ৩ দিন আগে আকুয়া গ্রাম থেকে এখানে বেড়াতে এসেছে এবং মনসুর মিয়ার পরিবারের লোকজন আশপাশের ৪টি বাড়ির ৫টি পরিবারের সাথে মেলামেশা করেছে। সে কারনে করোনা ঝুঁকি এড়াতে সাথে সাথেই ৪টি বাড়ি লক ডাউন ঘোষণা করে লাল পতাকা টাঙিয়ে দেন নির্বাহী কর্মকর্তা।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশেকুল হক ৪টি বাড়ি লকডাউনের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এই পরিবারগুলো করোনাভাইরাস আক্রান্ত নয়। তবে তারা লকডাউন এলাকা থেকে এসেছে। তাই কিছুদিন লকডাউনে থাকবে। লকডাউনকালীন সময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিক আহমেদ বাবু তাদের খাবার নিশ্চয়তা প্রদান করবেন।