আমতলীতে করোনার উপসর্গ নিয়ে আ.লীগ সভাপতির মৃত্যু, বাড়ি লকডাউন

বরগুনার আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জিএম দেলওয়ার হোসেনের করোনা উপসর্গ শ্বাস-কষ্ট ও জ্বর নিয়ে মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় প্রশাসন তার বাড়িটি লকডাউন করে দিয়েছে।


বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) সকালে পৌরসভার লোচা গ্রামের নিজ বাড়িতে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়।

জানা যায়, আমতলী উপজেলার প্রবীণ রাজনীতিবিদ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব জিএম দেলওয়ার হোসেন গত মঙ্গলবার করোনা উপসর্গ শ্বাস-কষ্ট ও জ্বরে আক্রান্ত হন। বুধবার তাকে আমতলী উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

বুধবার তিনি ওই হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। ওই হাসাপাতালের চিকিৎসকরা তার করোনাভাইরাস সন্দেহে নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকা রোগতত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইসিডিআর) পাঠিয়ে দেন। ওই হাসপাতাল থেকে তাকে ওই দিনই বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার সময় তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর খবর উপজেলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। তার মৃত্যুতে উপজেলার রাজনৈতিক অঙ্গনসহ সাধারণ মানুষের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। 

এদিকে প্রবীণ রাজনীতিবিদের এ মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক জানিয়েছেন। তার মৃত্যুর খবর পেয়ে উপজেলার হাজার হাজার নেতাকর্মী তার বাড়িতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জমায়েত হন। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন, এএসপি (আমতলী-তালতলী সার্কেল) সৈয়দ রবিউল ইসলাম ও আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে পুলিশ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য আগত নেতাকর্মীদের আহ্বান জানান। 

পরে বিকেলে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার মরদেহ লোচা গ্রামের বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন বলেন, করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সন্দেহে তার বাড়ি লকডাউন করে দেয়া হয়েছে। তার নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। যতদিন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন না আসবে ততদিন পর্যন্ত তার বাড়ি লকডাউন থাকবে। প্রতিবেদন এলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।