হাতিয়ায় করোনা আক্রান্ত চিকিৎসক, ২৮ জন কোয়ারেন্টাইনে

নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়া থেকে দুই দাপে ৪ জনের নমুনা পাঠানো হলে এর মধ্যে দুইজনের রিপোর্ট পাওয়া গেছে যাদের শরীরে করোনার সংক্রামণ নেই। তবে এক চিকিৎসক হাতিয়া থেকে ঢাকায় যাওয়ার পর করোনা আক্রান্ত হয়। এতে হাতিয়া থাকাকালীন তার সংস্পর্শে আসা দুই চিকিৎসককে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও ২৬ যাত্রী হাতিয়ায় ট্রলারযোগে আসায় তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে প্রশাসন।


বুধবার (৯ এপ্রিল) জেলা সিভিল সার্জন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

জানা যায়, হাতিয়ায় করোনা প্রতিরোধে বিভিন্ন এলাকা লকডাউনসহ ব্যাপক সতর্কতামূলক প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এরিমধ্যে গত ৬ এপ্রিল গোপনে ট্রলারযোগে হাতিয়া আসার পথে প্রশাসনের হাতে আটক ২৬ যাত্রীকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠায় প্রশাসন। এ নিয়ে করোনা আক্রান্ত হওয়ার পূর্বে চিকিৎসকের সংস্পর্শে থাকা দুই চিকিৎসকসহ নতুন করে কোয়ারেন্টাইনে ২৮ জন।

এদিকে গত ২১শে মার্চ এক চিকিৎসক ঢাকা থেকে হাতিয়া আসেন। ২৬শে মার্চ তিনি পায়ে ব্যথা পান। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি ৩০শে মার্চ ঢাকায় চলে যান। এর মাঝে ওনার শরীরে তেমন কোন উপসর্গ পরিলক্ষিত হয়নি। তবুও তিনি নিজে সন্দেহভাবে ঢাকা আইইডিসিআরে গিয়ে টেস্টের জন্য নমুনা দিয়ে আসেন। পরে গত ৭ এপ্রিল তিনি রিপোর্ট হাতে পেয়েছেন। রিপোর্টে করোনাভাইরাস পজেটিভ এসেছে। বর্তমানে তিনি তার ঢাকার বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নাজিম উদ্দিন বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সে অসুস্থ থাকায় হাতিয়াথাকা কালীন নিজের বাসায় অবস্থন করেন। এর মধ্যে যে সকল ডাক্তার তার সংস্পর্শে এসেছে তাদেরকে পরিপূর্ণ কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এছাড়াও করোনা রোধে বিভিন্ন কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।