কুষ্টিয়ায় নিখোঁজ শিশুর লাশ পাওয়া গেল প্রতিবেশীর রান্নাঘরে

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে নিখোঁজের ৩দিন পর প্রতিবেশীর রান্না ঘর থেকে উদ্ধার হয়েছে আরাফাত নামে দেড় বছরের এক শিশুর লাশ।

সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দৌলতপুর উপজেলার দাড়েপাড়া গ্রামের ছপের মালের রান্না ঘর থেকে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার হয়েছে।
নিহত শিশু একই গ্রামের শরিফুল ইসলামের ছেলে। গত শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শিশুটি নিখোঁজ ছিল। এ ঘটনায় ছপের মালের স্ত্রী কোহিনুরকে আটক করেছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, ছপের মালের রান্নাঘর ঘর থেকে লাশের দুর্গন্ধ ছড়ালে তার স্ত্রী কোহিনুর রান্নাঘরে পুতে রান্না শিশুর বস্তাবন্দি লাশ তুলে পুনরায় মাটি খুড়ে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করে। এসময় প্রতিবেশীরা দেখে ফেলায় কোহিনুর পালানোর চেষ্টা করলে তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ নিহত শিশুর লাশ উদ্ধার করে এবং কোহিনুরকে আটক করে।

ধারণা করা হচ্ছে শুক্রবার সকালে শিশুটিকে অপহরণ করে কোহিনুর ও তার স্বামী ছপের মাল হত্যা শেষে রান্নাঘরের মাটি খুড়ে পুঁতে রাখে। তড়িঘড়ি করে সামান্য মাটি খুড়ে বস্তাবন্দি লাশ মাটির নীচে চাপা দেওয়ায় তা পচে দুর্গন্ধ ছড়ালে পুনরায় লাশ তুলে মাটি খুড়ে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছিল।

বস্তাবন্দি শিশুর লাশ উদ্ধারের বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি নাসির উদ্দিন জানান, ৩ দিন আগে নিখোঁজ হওয়া আরাফাত নামে দেড় বছরের শিশুর বস্তাবন্দি লাশ প্রতিবেশীর রান্নাঘর থেকে উদ্ধার হয়েছে। এ ঘটনায় কোহিনুর নামে এক গৃবধুকে আটক করা হয়েছে। বিস্তারিত পরে জানানো যাবে।