নবীনগর আ.লীগের সম্মেলনে স্লোগান দেয়া নিয়ে কর্মীদের চেয়ার ছোড়াছুড়ি, আহত ৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধনের পরপরই স্লোগান দেয়াকে কেন্দ্র করে কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনায় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।


রবিবার (২৭ নভেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার নবীনগর পাইলট সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে এ ঘটনা ঘটে।জানা গেছে, বেলা সোয়া ১২টায় নবীনগর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়। অতিথিবৃন্দ মঞ্চে ওঠার পরপরই পরপরই ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফয়জুর রহমান এবং ওই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিমের নাম ধরে কর্মী-সমর্থকেরা স্লোগান দিতে শুরু করেন। কিছু সময়ের মধ্যেই দুই নেতার কর্মী-সমর্থকেরা উত্তেজিত হয়ে চেয়ার ছোড়াছুড়ি শুরু করেন।


এ সময় কর্মী-সমর্থকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। পরিস্থিতি সামাল দিতে মঞ্চের নেতারা মাইকে ঘোষণা দিয়ে কর্মীদের শান্ত হতে বলেন। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে পরিস্থিতি শান্ত হয়।


উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফয়জুর রহমান বাদলের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।দুই পক্ষের সংঘর্ষের সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী মাইকে বলেন, অনেক সম্মেলন করেছি। এই প্রথম কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটল। এখানে সাবেক সংসদ সদস্য ফয়জুর রহমান ও বর্তমান সংসদ সদস্য এবাদুল করিম—কারও নামেই কোনো স্লোগান হবে না।


এরপর মাইকের দিকে এগিয়ে যান মোহাম্মদ এবাদুল করিম। তিনি কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেন, চেয়ার ছোড়াছুড়ি অপমানজনক হয়েছে। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের সামনে আমরা অপমানিত হয়েছি। আপনারা কি চান আমাদের অপদস্থ করতে?


এরপর মাইকে ফয়জুর রহমান বলেন, আপনারা আমাদের জুতাপেটা করেছেন। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না, সে যে-ই হোক। আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।