টালটমাল ভারতের ক্রিকেট!

রোহিত শর্মা আর বিরাট কোহলির দ্বন্দ্ব নিয়ে ইতোমধ্যেই ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে ভারতের ক্রিকেটে। এর আগে বিশ্বকাপের দর বাছাই নিয়েও উঠে প্রশ্ন। তাছাড়া নির্বাচকদের যোগ্যতা নিয়েও সাবেক কয়েকজন খেলোয়াড় প্রশ্ন তুলে দেন।

এবার নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়েছে ভারতের সাবেক খেলোয়াড় ও যুবদলের মেন্টর রাহুল দ্রাবিড়কে পাঠানো একটি চিঠিকে কেন্দ্র করে।

দ্রাবিড়কে পাঠানো হয়েছে স্বার্থ সংঘাতের চিঠি! একইসঙ্গে ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাডেমির ডিরেক্টর পদের পাশাপাশি ইন্ডিয়া সিমেন্ট গ্রুপের সহ-সভাপতি পদেও আসীন রাহুল রাহুল দ্রাবিড়। সম্প্রতি মধ্যপ্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন আজীবন সদস্য সঞ্জীব গুপ্তার অভিযোগের ভিত্তিতে বিসিসিআই অম্বুডসম্যান ডিকে জৈন স্বার্থ-সংঘাতের অভিযোগে নোটিশ পাঠান রাহুল দ্রাবিড়কে।

নোটিশের উত্তর দেওয়ার জন্য আগামী ১৬ জুলাই অবধি দ্রাবিড়কে তাঁর সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে এবিষয়ে ব্যক্তিগত শুনানিরও বন্দোবস্ত করা হতে পারে।

এই চিঠির তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি। তিনি টুইটারে লেখেন, ভারতীয় ক্রিকেটে নতুন ফ্যাশন, স্বার্থ সংঘাত। খবরে থাকার নতুন উপায়। ঈশ্বর মঙ্গল করুন ভারতীয় ক্রিকেটের। দ্রাবিড়কে পাঠানো হল স্বার্থ সংঘাতের চিঠি!

রাহুলকে চিঠি পাঠানোর বিরুদ্ধে টুইট করেন ভারতীয় দলের প্রাক্তন স্পিনার হরভজন সিংও। তিনি লেখেন, সত্যি?? জানিনা কোনদিকে এগোচ্ছে ভারতীয় বোর্ড। দ্রাবিড়ের থেকে ভাল মানুষ ভারতীয় ক্রিকেট পাবে না। এই কিংবদন্তিদের চিঠি পাঠানো মানে তাঁদের অপমান করা। ক্রিকেটের দরকার তাঁদের। সত্যি, ঈশ্বর মঙ্গল করুন ভারতীয় ক্রিকেটের।

এর আগে ক্রিকেট অ্যাডভাইসরি কমিটির সদস্য হওয়ার পাশাপাশি একইসঙ্গে আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের মেন্টর পদ সামলানোর কারণে স্বার্থ-সংঘাতের অভিযোগে নোটিশ পেয়েছিলেন সচিন তেন্ডুলকর ও ভিভিএস লক্ষ্মণ। একই কারণে চিঠি পাঠানো হয় সৌরভ গাঙ্গুলিকেও। সব মিলিয়ে বোর্ডের উপর বেশ ক্ষুব্ধ ভারতের সাবেক ক্রিকেটাররা।