যে কারণে অ্যাসিড হামলার শিকার হন কঙ্গনার বোন

বার বার বিতর্কিত মন্তব্য করে খবরের শিরোনামে উঠে আসেন কঙ্গনা রানাউতের দিদি রঙ্গোলি চন্দেল। কিন্তু এবার নিজের এক ভয়াবহ অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন তিনি। পর পর টুইটের মাধ্যমে জানালেন কী ভাবে শারীরিক নিগ্রহ, অ্যাসিড হামলার শিকার হয়েছেন।

টুইটারে রঙ্গোলি লেখেন, ছেলেটি আমায় প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিল। আমি রিজেক্ট করি। এর পরেই এমন কাণ্ড ঘটায় সে।

সে দিনের সেই ভয়ঙ্কর স্মৃতির কথা স্মরণ করে তিনি আরও লেখেন, আমার বন্ধু (বর্তমানে স্বামী) হাসপাতালে নিয়ে যায়।দিনের পর দিন হাসপাতালের সামনে আমার পরিবার, বন্ধুবান্ধব বসে থেকেছে। আমার বোন কঙ্গনা, যাকে নাকি সেদিন প্রায় আধমরা করে ফেলেছিল সেই সব লোকগুলো— সে-ও দিনের পর দিন আমায় সাহস জুগিয়েছে, পাশে থেকেছে।

রঙ্গোলি তাঁর কলেজ জীবন থেকে একটি ছবি শেয়ার করেন। এই ছবি তোলার কিছু দিনের মধ্যেই তাঁর উপরে অ্যাসিড হামলা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন তিনি। সেই সময়ে দেহরাদুনে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছিলেন তিনি। এই অ্যাসিড হামলা এতটাই ভয়াবহ ছিল যে ৫ বছরের মধ্যে ৫৪ বার অস্ত্রোপচার হয়েছিল রঙ্গোলির।

সেই অস্ত্রোপচারগুলি এতটাই জটিল ছিল যে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে অসুবিধার মুখে পড়তে হয়েছিল রঙ্গোলিকে। এখনও সেই দাগ রয়ে গিয়েছে। মাঝে মাঝে অ্যাসিড হামলার জন্য ঘাড় নড়াচড়া করতেও বেশ অসুবিধা হয় তাঁর। রঙ্গোলি লিখছেন টুইটারে, আমি ঘাড় ঘোরাতে পারতাম না । মনে হতো, এর থেকে মরে গেলে ভাল হতো। অ্যাসিড হামলার সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। আমার হামলাকারীকে কয়েক সপ্তাহের মধ্যে জামিনে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। ওকে স্বাধীন ভাবে ঘুরে বেড়াতে দেখে খুব কষ্ট হয়েছিল।

রঙ্গোলি লিখছেন, এই অপরাধীদের কেন মৃত্যুদণ্ড হবে না। সৌন্দর্যকে আমি গুরুত্ব দিইনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি টপার ছিলাম। কিন্তু তরুণ জীবনে বেশি অংশই কেটেছে অস্ত্রোপচারে। ৯০ শতাংশ পুড়ে গেলেও কোনও সংরক্ষণ নেই এই দেশে।