বিশ্বসেরা অ্যাথলেট যে কারণে পর্নো জগতে

ছিলেন বিশ্বের সেরা জিমন্যাস্টদের অন্যতম। কিন্তু গত ১৭ বছরে তাঁর জীবন আমূল পরিবর্তিত হয়েছে। খেটেছেন জেল। এরপরই যোগ দিয়েছেন পর্নো দুনিয়ায়।

আর্টিস্টিক জিমন্যাস্ট ভেরোনা ভ্যান দ্য ল্যর। নেদারল্যান্ডসের দক্ষিণ অংশে গৌডা অঞ্চলে তার জন্ম। ১২ বছর বয়সে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন জাতীয় স্তরে। ২০০০ সালে প্রথম আবির্ভাবেই জুনিয়র অল রাউন্ড চ্যাম্পিয়ন হন ভেরোনা।

পরের বছর গ্রিসে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে তাঁর নামের পাশে যোগ হয় পাঁচটি পদক। ২০০১ সালে তিনি-ই ডাচ অল অ্যারাউন্ড উইমেন্স চ্যাম্পিয়ন। ২০০২ সালে জিমন্যাস্টিক্স বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন ভেরোনা। সে বছর তিনি দেশের সেরা ক্রীড়াবিদ ঘোষিত হন।


২০০৭ সালে তিনি চতুর্থবারের জন্য জিমন্যাস্টিক্সে নেদারল্যান্ডসে অল রাউন্ড চ্যাম্পিয়ন হন। পরের বছর খেলা থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন তিনি। ২০১১ সালে প্রায় আড়াই মাসের কারাদণ্ড হয় ভেরোনার। অভিযোগ, তিনি এক দম্পতিকে ব্ল্যাকমেল করেছিলেন।

তদন্তে উঠে আসে,ওই দম্পতি বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত ছিলেন। সেটিকে মূলধন করেই ভেরোনা ব্ল্যাকমেলিং করছিলেন বলে জানা যায়। সম্প্রতি তিনি জানিয়েছেন, ২০১১ থেকেই তিনি পর্ন ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছেন।

ভেরানোর অভিযোগ, জেল থেকে মুক্তির পরে পরিবারের লোক তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক রাখেননি। তাই অর্থ সংস্থানের জন্য তিনি বাধ্য হয়েছিলেন এই পেশায় আসতে।


তবে ভেরানো জানিয়েছেন, তিনি আর পাঁচজন পর্নতারকার থেকে আলাদা। কাজের নিয়মকানুনও ঠিক করতেন তিনি নিজেই। তাঁর দাবি, পর্ন ছবি যা করেছেন, সেখানে হয় তিনি একা ছিলেন, অথবা বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে শুটিং করেছেন।

এ বছরই পর্ন ইন্ডাস্ট্রি থেকে বিদায় নেওয়ার কথা জানিয়েছেন ভেরোনা। দু’টি চুক্তি শেষ হওয়ার অপেক্ষায় আছেন তিনি। তবে ভেরোনা এ কথাও জানিয়েছেন গত আট বছর ধরে তিনি এই কাজ উপভোগ করছেন। মনে হচ্ছে, বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে সুন্দর সময় কাটছে।