বাংলা ওয়েব সিরিজে যৌনতার ছড়াছড়ি

১৩ ডিসেম্বর থেকে হইচই-তে স্ট্রিমিং শুরু হয়েছে ওয়েবসিরিজ ‘মন্টু পাইলট’-এর। ওই সিরিজে এক যৌনকর্মীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন অলিভিয়া সরকার ওসৌরভ দাস।

ওয়েব সিরিজটির কাহিনী থেকে জানাগেছে, মন্টুর মাকে ওর বাবা বিয়ে করে এনে নীলকুঠি বলে একটা জায়গায় বিক্রি করে দেয়। তিন, চার বছরের মন্টুকে নিয়ে ওর মা পালায়। একটা ছোট্ট ঘরে থাকতে শুরু করে। কিন্তু ওই নীলকুঠির দু'জন লোক এসে বলে, নীলকুঠি থেকে কেউ পালিয়ে বাঁচতে পারেনি। মাকে ঘর থেকে বের করে নিয়ে যায়। মন্টু ঘর থেকে বেরিয়ে দেখে মা দাউদাউ করে জ্বলছে। ও আবার নীলকুঠিতেই ফিরে আসে। ওখানেই বড় হয়।

ছোট থেকেই উড়োজাহাজ চালানোর স্বপ্ন দেখত মন্টু। মা বলতেন,‘পাইলট হবি!’ বড় হয়ে মন্টু সেই পাইলটই হয়েছে। তবে উড়োজাহাজের নয়, অন্ধকার গলির মেয়েদের পাইলট। নীলকুঠির রাজকুমার এই মন্টুর আলো-আঁধারি জীবনের গল্প বলবে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম হইচইয়ের নতুন সিরিজ মন্টু পাইলট। পরিচালক দেবালয় ভট্টাচার্য।

নাম ভূমিকায় সৌরভ দাস। চরিত্রহীনের দুটি সিজনের পর ‘মন্টু পাইলট’-এ দেবালয়ের সঙ্গে কাজের হ্যাটট্রিক হল তাঁর। শুক্রবার থেকে আট পর্বের সিরিজটির স্ট্রিমিং শুরু হয়েছে। যাতে পুরো পির্বেই দেখা গেছে যৌনতার ছড়াছড়ি।