সরকারি আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখালেন পরী-সিয়ামরা

বাংলাদেশে ৩৯ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। করোনা প্রতিরোধে সরকারী ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। বন্ধ করা হয়েছে যোগাযোগ ব্যাবস্থা। জোর দেওয়া হয়েছে সামাজিক দূরত্বের উপর। একসাথে দুইজনকে দেখলেই নেওয়া হচ্ছে ব্যবস্থা।

এমন পরিস্থিতির মধ্যে সুন্দরবনে চলেছে আবু রায়হান জুয়েল পরিচালিত ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমার শুটিং। ২৫জন শিশুশিল্পীসহ ৭০ জনের সিনেমা ইউনিট নিয়ে গত ১৪ মার্চ ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমার শুটিং শুরু করেছিলেন নির্মাতা। কথাছিলো টানা ২৫ দিন শুটিং করে তবেই ফিরবেন।

কিন্তু করোনার কারণে অবশেষে শুটিং বন্ধ করে আগে ভাগেই ঢাকায় ফিরছেন তারা। আজ বৃহস্পতিবার সুন্দরবন থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেছেন ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমার ইউনিট। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ছবিটির সহকারী পরিচালক আবুল কালাম আজাদ।

সিনেমার শুটিং নিয়ে আজাদ বলেন, ‘আমরা সুন্দরবনে শুটিং করেছি। লোকালয়ের সঙ্গে আমাদের কোনো যোগাযোগ ছিলো না। বাইরের কেউ আমাদের শুটিং স্পটে আসা সম্ভব ছিলো না। আমরা খুব সতর্কতার সঙ্গে কয়েকদিন শুটিং করেছি। অবশেষে আরও সেফটির কথা ভেবে কাজ বাকি রেখেই ফিরে আসছি।’

এ সিনেমায় জুটি বেঁধে আভিনয় করছেন সিয়াম-পরীমনি। এ ছাড়াও অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করছেন—শহীদুল আলম সাচ্চু, আজাদ আবুল কালাম, মুনিরা মিঠু, কচি খন্দকার, আশিষ খন্দকারসহ ১৮ জন শিশুশিল্পী। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে সরকারি অনুদানে নির্মিত হচ্ছে এটি।

তবে তাদের একটি ছবি নিয়ে জোর সমালোচনা শুরু হয়েছে। যেখানে ছবির পুরো ইউনিটকে একাসাথে দেখা গেছে। অথচ তাদের কারো সাথেই ছিল না মাস্ক বা কোনো সুরক্ষা।