রূপচর্চায় যেভাবে ব্যবহার করবেন আদা

রান্নার অতি পরিচিত একটি মশলার নাম 'আদা'। আদা শুধু রান্নার স্বাদ বৃদ্ধি করে না, এর রয়েছে নানা গুণ। সুন্দর ও মসৃণ ত্বক পেতে ব্যবহার করতে পারেন আদা। জেনে নিন ত্বকের যত্নে আদার কিছু ব্যবহার।

ক্ষতের দাগ হালকা করতে:

একটি আদা ছিলে, কেটে ও ঘষে রস বের করে নিন। ঠাণ্ডা করতে কিছুক্ষণের জন্য ফ্রিজে রেখে দিন। প্রভাবিত এলাকায় আদার রস লাগান। ক্ষতের দাগ হাল্কা করতে দিনে কমপক্ষে দুইবার আদার রস লাগান। ৬ সপ্তাহ বা তারও কম সময়ের মধ্যেই আপনি পার্থক্য দেখতে পাবেন।

ব্রণ দূর করতে :

১ চা-চামচ আদার গুঁড়ার সঙ্গে ১ চা-চামচ মধু ও কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মেশান। ভালোভাবে মিশিয়ে মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন। ব্রণ আক্রান্ত স্থানে মিশ্রণটি লাগান। ৩০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ব্রণকে সম্পূর্ণভাবে সারিয়ে ফেলতে সপ্তাহে একবার এই ফেস প্যাক করুন।

ত্বকের উজ্জ্বলতায় :

১ চা-চামচ সদ্য নির্যাসিত আদার রস নিন। এর সঙ্গে ২ টেবিল চামচ গোলাপ জল ও ১ টেবিল চামচ মধু মেশান। সব উপকরণ ভালোভাবে মিশে যাওয়া পর্যন্ত মেশাতে থাকুন। আপনার মুখ ও গলায় এই প্যাক লাগান। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

পেশির আরামে :

কিছু কিছু পেশিকে রিল্যাক্স করতে ও শরীরে রক্ত প্রবাহ উদ্দীপিত করতে গোসলের ক্ষেত্রে হালকা গরম পানিতে হাফ কাপ এপসম লবণ ও দুই টেবিল চামচ আদা গুঁড়া মিশিয়ে নিন। এই পানি দিয়ে গোসলে পেশি শিথিলতা পাবে।

বডি স্ক্রাব :

২ টেবিল চামচ ওলিভ অয়েল, সমপরিমান চিনি, ২ টেবিল চামচ আদা বাটা এবং কয়েক ফোঁটা লেমন ওয়েল নিন। মেশাতে থাকুন যতক্ষণ না আপনি একটি দানাদার পেস্ট পাচ্ছেন। শরীর সামান্য ভিজিয়ে নিয়ে, এই মিশ্রণটি পা থেকে গলা পর্যন্ত ম্যাসাজ করুন। ধুয়ে ফেলার আগে, ১০-১৫ মিনিট ধরে এই ম্যাসাজ করুন।

চুলের বৃদ্ধির জন্য :

আধা কাপ জোজোবা তেলের সঙ্গে ২ টেবিল চামচ আদার রস মেশান। ১-২ মিনিটের জন্য তেলটিকে গরম করে নিন। ত্বকে সহ্য করার মতো অবস্থা পর্যন্ত তেলটিকে ঠান্ডা করে নিন। এই হালকা গরম তেল আপনার স্কাল্পে ম্যাসাজ করুন। তেলকে ভালোভাবে শুষে নিতে ও রক্ত সঞ্চালিত করতে, আপনার আঙুলের নরম ডগা দিয়ে সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ করুন। সারারাত রেখে সকালে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চুলের বৃদ্ধির জন্য, সপ্তাহে কমপক্ষে একবার আদা ব্যবহার করুন।