বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে গৌরব '৭১ এর আলোচনা সভা

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে “বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষ ও আমাদের করণীয়” শীর্ষক আলোচনা সভা ও ইফতারের আয়োজন করে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন গৌরব ’৭১।

রবিবার (২৬ মে) বিকেলে রাজধানীর নিউ এলিফ্যান্ট রোডের দীপনপুরে (রাজমঞ্জিলের ২য় তলায়) এ আলোচনা সভা ও ইফতার অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মো: আবু কাওসার, ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজ, জিটিভি ও সারাবাংলা ডট নেটের প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, কর কমিশনার মো: আসাদুজ্জামান, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের সহ সভাপতি কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন মজুমদার, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী বীর মুক্তিযোদ্ধা মনোরঞ্জন ঘোষাল, আনন্দ পাঠ একাডেমীর অধ্যক্ষ ইফাত আরা নার্গিসসহ প্রমুখ।

সভায় গোলাম কুদ্দুছ তাঁর বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষকে কেন্দ্র করে সারাদেশে যে উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে তা খুবই ইতিবাচক। এ দিবসের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শন ও চেতনা জাতির কাছে তুলে ধরতে হবে। দেশকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাবনা, দেশের মানুষের মুক্তি ও কল্যাণের জন্য তাঁর ত্যাগ তরুণ সমাজকে জানাতে হবে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। তাঁর আদর্শকে ধারণ করতে হলে অবশ্যই দুর্নীতিমুক্ত থাকতে হবে। দেশকে ভালোবাসতে হবে। দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, শুধু অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী পালন করলে হবে না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন করতে হবে, ধারণ করতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে স্কুল পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অথবা বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করার জন্য তিনি আয়োজকদের অনুরোধ জানান।

এ্যাডভোকেট মোল্লা মো: আবু কাওসার বলেন, একাত্তর হচ্ছে অনেক গৌরবের জায়গা। যে গৌরব বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ তিতিক্ষার কারণে এসেছিল।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর এদেশে কোন জঙ্গিবাদ, মৌলবাদের স্থান হবে না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, আরো এগিয়ে যাবে।

ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজ বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু একটি নাম নয়, একটি প্রতিষ্ঠান। আর এ প্রতিষ্ঠানকে লালন করতে হলে বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে। আর বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে তাঁর কর্মের মধ্য দিয়ে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে চোখে দেখেছি কিনা সেটা বড় কথা নয়। বড় কথা হলো তাঁর প্রকৃত আদর্শ ধারণ করেছি কিনা।

এসময় তিনি বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্গণ প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা, উপস্থিত বক্তব্য, সঙ্গীতসহ নানা আয়োজন করার আহবান জানান।

গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, বঙ্গবন্ধু যে আদর্শ ধারণ করেছেন তা থেকে আমরা শত মাইল দূরে আছি। এটা খুবই হতাশার।

তিনি বলেন, আমার মতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ হলো উদার, অসম্প্রদায়িক, ধর্মপ্রাণ বাঙালি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ হলো সততা, নিষ্ঠা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ হলো মানুষের ক্ষমতায়ন।

তিনি আরও বলেন, নিজেকে প্রশ্ন করুন কতোটুকু ধারণ করেছেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ?

গৌরব '৭১ এর সভাপতি এসএম মনিরুল ইসলাম মনির সভাপতিত্বে এবং সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীনের সঞ্চালনায় এতে আরো উপস্থিত ছিলেন বিবার্তা সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসি, ঢাবি রোকেয়া হল ছাত্র সংসদের এজিএস ফাল্গুনি দাস তন্বীসহ বিশিষ্ট রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গ।