ফারুক-শাওনকে ছাড়াই শেখ হাসিনার সাথে বৈঠকে যুবলীগ

আসন্ন কংগ্রেসকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন আওয়ামী যুবলীগের নেতারা। তবে যুবলীগ চেয়ারম্যানসহ সংগঠনের শীর্ষ পাঁচ নেতাকে দেখা যায়নি বৈঠকে।

রবিবার (২০ অক্টোবর) বিকেল ৫টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে পূর্ব নির্ধারিত এ বৈঠক শুরু হয়।

সংগঠনের প্রেসিডিয়াম, সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর এ বৈঠকে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি, শেখ ফজলুর রহমান মারুফ ও শেখ আতিয়ার রহমান দিপু উপস্থিত নেই। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতি-অনিয়মের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠায় বৈঠকে তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়।

তবে বৈঠকে অংশ নিতে শেখ ফজলুর রহমান মারুফ গণভবনে গেলেও তাকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

সূত্র জানায়, এই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে, যুবলীগের আসন্ন কংগ্রেসে কে সভাপতিত্ব করবেন। কারণ গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কংগ্রেসে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্ব করার কথা থাকলেও অভিযোগ ওঠায় তাকে দিয়ে সভাপতিত্ব করা হচ্ছে না।

এছাড়া সম্মেলনে যুবলীগের কমিটিতে যারা আসবেন তাদের বয়সসীমা কী হবে সেটিও এ বৈঠকে নির্ধারণ করা হবে। নেতাদের বয়সসীমা ৪৫ থেকে ৫৫ এর মধ্যে যেকোনো একটি নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে কংগ্রেসের প্রস্তুতির জন্য আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হবে এই বৈঠকে।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদের নেতৃত্বে বৈঠকে উপস্থিত রয়েছেন প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ শামসুল আবেদীন, শহিদ সেরনিয়াবাত, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মো. ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরন, আবদুস সাত্তার মাসুদ, অ্যাডভোকেট বেলাল হোসাইন, আলতাব হোসেন বাচ্চু, চয়ন ইসলাম, ড. আহম্মেদ আল কবির, মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, আবুল বাশার, মোহাম্মদ আলী খোকন, অধ্যাপক এবিএম আমজাদ হোসেন, আনোয়ারুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার নিখিল গুহ, শাহজাহান ভূইয়া মাখন, অ্যাডভোকেট মোতাহার হোসেন সাজু, ডা. মোখলেছুজ্জামান হিরু, যুগ্ম সম্পাদক মহিউদ্দিন আহম্মেদ মহি, সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম জাহিদ, আমির হোসেন গাজী, মুহা. বদিউল আলম, ফজলুল হক আতিক, আবু আহম্মেদ নাসিম পাভেল, আসাদুল হক, এমরান হোসেন খান ও আজহার উদ্দিন।