গাফফার চৌধুরীর জ্ঞান জাতির চক্ষুকে উন্মীলিত করেছে

একুশের গানের গীতিকার, লেখক-সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরীর জ্ঞান জাতির ক্রান্তিলগ্নে মানুষের চক্ষুকে উন্মীলিত করেছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মাদ সামাদ।


বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মিলনায়তনে ‘গৌরব ৭১’ সংগঠন আয়োজিত প্রয়াত আবদুল গাফফার চৌধুরীর স্মরণসভায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপউপাচার্য বলেন, “যে জ্ঞান চক্ষু উন্মীলিত করে না, যে জ্ঞান আত্মশুদ্ধি যোগায় না, সেই জ্ঞান বৃথা।  গাফফার চৌধুরী এরকম একজন জ্ঞানী মানুষ ছিলেন, যে জ্ঞান আমাদের চক্ষুকে উন্মীলিত করেছে, জাতির ক্রান্তিলগ্নে আমাদের সাহস যুগিয়েছে।”

অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ বলেন, “পঁচাত্তরে বঙ্গুবন্ধুকে হারানোর পর আমরা ছিয়াত্তরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এসেছিলাম। হলগুলোতে স্লোগান হতো, ‘মুজিব হত্যার পরিণাম, বাংলা হবে ভিয়েতনাম’। তখন স্লোগান দিলেও আমরা কখনো কল্পনা করতে পারি নাই মুজিব হত্যার বিচার হবে এদেশে। এটা কল্পনার বাইরে ছিল, এটাই সত্য।

“মুজিব হত্যার বিচারে যারা কাজ করেছেন, লেখালেখির মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করেছেন, উদ্বুদ্ধ করেছেন এবং জীবন দিতে প্রস্তুত করেছেন, তাদের মধ্যে পথিকৃৎ সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী। গাফফার চৌধুরীর লেখালেখি থেকে শিক্ষা নিলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের রেনেসাঁর সমাজ; সম্মৃদ্ধি ও অসাম্প্রদায়িকতার সমাজ গড়া সম্ভব হবে।”