যাদের ঘাম, রক্ত আর বিসর্জনে দল ক্ষমতায়; তারা আজ সংখ্যালঘু!

একটা দীর্ঘ লড়াই সংগ্রাম ত্যাগ আর রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ টানা ১২ বছর ক্ষমতায়। দীর্ঘ লড়াইয়ের সময়টা কতজনের মাসের পর মাস ঘরে ফেরা হয়নি। বাবার সাথে ঈদের নামাজটা পর্যন্ত পড়া হয়নি। জীবিত মায়ের মুখটা দেখা হয়নি। জেলের অন্ধকারে কেটে গেছে বছর মাস। পঙ্গুত্ববরণ করতে হয়েছে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম সম্মেলনে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম তার বক্তৃতায় বলেছিলেন, ‘আওয়ামী লীগ শুধু একটা রাজনৈতিক দল নয়, আওয়ামী লীগ একটা অনুভূতির নাম। আমি আওয়ামী লীগের সন্তান, আওয়ামী লীগের ঘরেই আমরা জন্ম। আওয়ামী লীগ যখন ব্যথা পায়, আমারও কিন্তু হৃদয়ে ব্যথা লাগে। আওয়ামী লীগের একটা কর্মী যদি ব্যথা পায়, সেই ব্যথা আমিও পাই।’

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এই দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী একটি রাজনৈতিক দল। দলের জন্মের সঙ্গে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নাম জড়িয়ে আছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে নানা ঘাত প্রতিঘাতের ভিতর দিয়ে অন্ধকার দুঃসময় অতিক্রম করে দলটি বিকশিত হয়ে গণমানুষের আস্থার আর ভরসার জায়গা হয়ে উঠেছে। বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এই দেশে স্বাধিকার স্বাধীনতার সাফল্যে গৌরব অর্জন করে গোটা জাতিকে এক মোহনায় মিলিত করে গণরায় নিয়ে সুমহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্ম দিয়েছে। ‘৭৫ এর ১৫ আগস্ট পরিবার পরিজনসহ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশে আওয়ামী লীগকে শুধু ক্ষমতাচ্যুতই করা হয়নি হাজার হাজার নেতা কর্মীকে দেশান্তরী ও কারাগারে নিক্ষেপ করা হয়েছে।

‘৭৫ এর পর বা ২০০১ এর নির্বাচনের পর এমন লাখে লাখে ঝাঁকে ঝাঁকে আওয়ামী লীগ কিন্তু ছিল না। আজ গোটা দেশটাই যেন আওয়ামী লীগ আর আওয়ামী লীগ। বিএনপি-জামায়াত শাসনামলে এই সুযোগসন্ধানীরা তাদের ছাতার তলে ভিড় করেছিলে। আর আওয়ামী লীগের অনুভূতিপ্রবণ নেতাকর্মীরা শেখ হাসিনাসহ গ্রেনেড হামলার শিকার হয়েছিলেন। জেল-জুলুম নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন। মিথ্যা মামলা ও পুলিশি নির্যাতন ভোগ করে ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছিলেন। দলের সেই দুঃসময়ে আজকের এই মতলববাজদের কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি। আবার যদি কোন সংকট আসে, এরা হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া হেফাজতী তাণ্ডবের সময় এই ব্যাপারটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে।

গত এক যুগে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে সুযোগ সন্ধানী এসব আশ্রিতরা চাটুকারিতা মোসাহেবি ও নানা ‌অনৈতিক সুযোগ সুবিধা আদান প্রদানের মধ্য দিয়ে নিজেদের আখের গোছানো ছাড়া আর কিছুই করেনি। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা যথার্থই বলেছিলেন ‘ত্যাগী কর্মীরা অভিমানী হয়, তারা বেইমানি করে না।’ আর এই সুবিধাভোগী নানা শ্রেণী পেশার যে নব্য আওয়ামী লীগারে ঐতিহ্যবাহী অনুভূতিপ্রবণ দলটিতে গত ১২ বছরে ভরে গেছে তারা কেবল নিজেদের লাভ ক্ষতির হিসাবই বোঝে। সৈয়দ আশরাফের অনুভূতি বোঝে না। আবেগ অনুভূতিহীন স্বার্থান্ধ সুবিধাবাদী বর্ণচোরারা যখন যারা ক্ষমতায় তাদের পায়ের কাছে নানা বেশে দাসের মতো বসে থাকে। তাদের নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে দলকে বিব্রত করে। ত্যাগী কর্মীদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। তাদের বুক ফাটে তো মুখ ফোটে না।

শেখ হাসিনার আমলে সবাই সুশীল, কেন রে বাবা? শেখ হাসিনা কি বাতাসে ভর করে ক্ষমতায় এসেছেন? লাখো কর্মীর ঘাম রক্ত আর আত্মত্যাগের বিনিময়েই আজকের আওয়ামী লীগ। এই ত্যাগী কর্মীদের যাওয়ার কোনো জায়গা নেই, ব্যাপারটা কিন্তু এমনও নয়। তারা তাদের মায়া কাটাতে পারে না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাথে তাদের যে ঘোর লাগা প্রেম সেটা যেমন খাঁটি তেমনই দুর্নিবার। আফসোসটা কোথায় জানেন চটুল প্রেমিকের চটকদারী মোহে আসল প্রেমিককে দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমি তারপরও আশাবাদী। কারণ একজন শেখ হাসিনা আছেন যে। এই গ্রহণের কাল কাটবেই। অনুভূতির আওয়ামী লীগ আসল হীরে মানিক ঠিক খুঁজে নেবে। বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ পথ হারাবে না। আওয়ামী লীগ যখন জেতে, একা জেতে। কিন্তু যখন হারে তখন গোটা দেশটাই হেরে যায়। এদেশে পাপুলরা সপরিবারে এমপি হয়। সাহেদ সাবরিনাদের জন্য গণভবনের দুয়ার খুলে বসে থাকে কেউ কেউ।

লাখো কর্মীর রক্ত আর প্রেম মিশে আছে যে দলটাতে তার উল্টোপথে হাঁটা কর্মীদের রক্তাক্ত করে, যন্ত্রণা বাড়ায়। রাজনীতিতে নাকি ‌‌অভিমানের জায়গা নেই। কিন্তু গভীর প্রেম থেকেই তো অভিমান জন্ম নেয়। প্রতিটা কর্মীর তীব্রতম প্রেম তার সংগঠন। অনুভূতির অনেকটা জুড়ে এই প্রেম। হাজারো চটকদারী আর কেনাবেচার ভিড়ে সেই অনুভূতির আওয়ামী লীগ আজ কোথায়?

দলের দুঃসময় এলে এইসব হাইব্রিড, অনুপ্রবেশকারী সুযোগসন্ধানীদের যে খুঁজে পাওয়া যাবে না সেটি দলের হাই কমান্ডের উপলব্ধি করার সময় এখন। এইসব বসন্তের কোকিল বা কাউয়াদের এখন দূরে সরানোর সময়। তা না হলে নকলের ভিড়ে আসল হারিয়ে গেলে দলকে চড়া মূল্য দিতে হবে।

তপ্ত রাজপথ, অন্ধকার কারাগার, পুলিশের লাঠির আঘাত, বিরোধীদলের হামলা যারা মোকাবিলা করেনি তারাই এখন দল এবং সরকার চালায়। আর যাদের ঘাম, রক্ত আর বিসর্জনে দল ক্ষমতায় এলো তারা আজ সংখ্যালঘু। তারা দল এবং সরকারে চরম ভাবে উপেক্ষিত।

লেখক: বাণী ইয়াসমিন হাসি

সম্পাদক, বিবার্তা২৪ডটনেট