এই সুন্দরির পরিচয় জানলে অবাক হবেন!

যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের ফাইনালে কিংবদন্তি সেরিনা উইলিয়ামসকে ৬-৩, ৭-৫ হারিয়ে প্রথম গ্রান্প স্ল্যাম জিতে নিয়েছেন বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু। তার প্রশংসায় এখন মাত টেনিস তারকারা।

ফাইনালে নামার আগে টানেল দিয়ে যখন বিয়াঙ্কা আসছেন তখন তাঁর কানে হেডফোন, গানের তালে তালে নাচছিলেন। এতটাই ফুরফুরে মেজাজে ছিলেন। যে ভিডিও দেখে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে বলে দেন এ মেয়ে হারার জন্য আসেনি। 

ম্যাচের পরে অবশ্য বিয়াঙ্কা বলেছেন, তিনি চাপে ছিলেন। তবে তাঁর টানেল দিয়ে আসার ভিডিও দেখে তা কে বলবে!

বারো মাস আগে এই বিয়াঙ্কাই চোটের ধাক্কায় কাবু ছিলেন। ফ্লাশিং মেডোজে যোগ্যতা অর্জন পর্বের প্রথম রাউন্ডে বিদায়ও নিয়েছিলেন। বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে পিছিয়ে গিয়েছিলেন দুশোরও বেশি। সেখান থেকে চলতি মরসুমে বিয়াঙ্কার উত্থান এখন সব চেয়ে আলোচিত বিষয়ের মধ্যে একটি।

বিয়াঙ্কার জন্ম বেলারুশে। সেখান থেকে তার বাবা-মা পাড়ি জমান কানাডায়। তখন তার বয়স মাত্র ৩। এর ৪ বছর পর তার মা তাকে নিয়ে ফের চলে যান বেলারুশে। তবে তার বাবা থেকে যান কানাডাতেই।

সেখানে গিয়ে টেনিসের সাথে পরিচিত হন বিয়াঙ্কা। সৌজন্যে ছিলেন তার দাদি। ২ বছর পর ফের কানাডায় ফেরেন তিনি। এরপরই শুরু হয় তার টেনিস ক্যারিয়ার। মাত্র ১৪ বছর বয়সেই কানাডার স্কুল পর্যায়ের সেরা টেনিস খেলোয়াড় হন বিয়াঙ্কা।

বিয়াঙ্কার বয়স এখন মাত্র ১৯। এই বয়সেই সেরেনাকে হারিয়ে প্রথম কানাডিয়ান হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে জিতেছেন বিয়াঙ্কা। ইচ্ছাশক্তির জোরে তাঁর কল্পনা রূপ নেবে বাস্তবে। তাই স্বপ্ন পূরণের পরে ১৯ বছর বয়সি আনন্দাশ্রু মুছতে মুছতে বলে দেন, সেরিনা উইলিয়ামসের বিরুদ্ধে ফাইনালে খেলব এটা এক দিনের স্বপ্ন নয়। বহু দিন ধরে এই মুহূর্তটার অপেক্ষা করছি।

তিন বছর আগে একটি প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে ১৬ বছর বয়সি বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু নিজেকে একটা নকল চেক লিখে দিয়েছিলেন। যুক্তরাষ্ট্র ওপেন চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে বিজয়ী যে রকম চেক পায়, ঠিক সে রকম। কে জানতো ৩ বছর পর সেই চেকটিই তার হাতে উঠবে।

বিয়াঙ্কা টেনিস কোর্টে যেমন পারদর্শী তেমনি মডেলিংয়েও। এই খেলোয়াড়ের ছবি দেখলে অনেকেই তাকে মডেল ভেবে বসবেন।