বিশ্বরেকর্ড গড়ে জিততে হবে ভারতকে

বাঁচা-মরার লড়াইয়ে আজ ভারতের মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড। এমন ম্যাচে জনি বেয়ারস্টোর সেঞ্চুরি আর বেন স্টোকসের তাণ্ডবে ৩৩৭ রান তুলেছে ইংলিশরা। এর মানে জিততে হলে বিশ্বরেকর্ড গড়তে হবে ভারতকে। কারণ এর আগে বিশ্বকাপে এত রান চেজ করার ইতিহাস নেই।

বার্মিংহামে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার জেসন রয় ও জনি বেয়ারস্টো ওপেনিং জুটিতে দারুণ শুরু এনে দেয়া ইংল্যান্ডকে। এই জুটির অর্ধশত রান আসে ৬০ বল থেকে। এরপরই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেন দুই ব্যাটসম্যান। ভারতীয় বোলারদের তুলোধুনা করে পরের ৬ ওভারে তারা দলের খাতায় যোগ করেন ৬০ রান। এরইমধ্যে নিজের অর্ধশতক তুলে নেন বেয়ারস্টো।

এরপর রানের চাকা বাড়তে থাকে আরও দ্রুতগতিতে। এই দুই ব্যাটসম্যান একমাত্র বুমরাহ বাদের বাকি সব বোলারদের উপর দিয়ে তোলেন ঝড়। এর মাঝে নিজের হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন জেসন রয়ও। তবে এই ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি পূরণ করতে পারেননি।  কুলদীপ যাদবের ২৩তম ওভারে রবীন্দ্র জাদেজার কাছে ক্যাচ দেন তিনি।

তবে আউট হওয়ার আগে ৫৭ বলে করেন ৬৬ রান। এই ব্যাটসম্যান ফিরলেও তাণ্ডব চালু রাখেন বেয়ারস্টো। মাত্র ৯০ বলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের অস্টম সেঞ্চুরি। তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন জো রুট। তবে এরপরই ম্যাচে নেয় নতুন মোড়। ৩২তম ওভারে বল করতে এসে ১১১ রান করা বেয়ারস্টোকে পান্টের ক্যাচ বানান শামি। তখন ইংল্যান্ডের রান ছিল ২০৫। এক ওভার শেষ না হতেই ইংলিশ শিবিরে আঘাত হানেন শামি। এবার তার শিকার ইয়ন মরগান।

এরপর বেশ কয়েকটি ওভার রীতিমতো রান তুলতে যুদ্ধ চালাতে হয় ইংল্যান্ডকে। তবে এরপর দলের হাল ধরেন জো রুট আর বেন স্টোকস। এই দুই ব্যাটসম্যান চতুর্থ উইকেটে গড়েন ৭০ রানের দারুণ এক জুটি। এই জুটি ভাঙেন সেই শামি। এবার তিনি ৫৪ বলে ৪৪ রান করা রুটকে ফেরান।

তবে অপরপ্রান্তে ঠিকই তাণ্ডব চালান স্টোকস। তার সাথে যোগ দেন জস বাটলারও। তবে বাটলার ৮ বলে ২০ রানের মিনি ঝড় তুলেই বিদায় নেন শামির শিকার হয়ে। এরপর এই বোলার ফেরান ক্রিস ওকসকেও। এতেই বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ৫ উইকেটের দেখা পান শামি।

শেষ পর্যন্ত বেন স্টোকসের ৫৪ বলে ৭৯ রানের সুবাদে ৭ উইকেটে ৩৩৭ রান তুলতে সক্ষম হয় ইংলিশরা। ভারতের জিততে চাই এখন ৩৩৮। এর আগে সর্বোচ্চ ২২৮ রান চেজ করার রেকর্ড ছিল আয়ারল্যান্ডের।