১০ উইকেটের লজ্জার হার লঙ্কানদের

পাকিস্তানের পর এশিয়ার আরেক দেশ বিশ্বকাপে পর্যদুস্ত হয়েছে। বিশ্বকাপের তৃতীয় ম্যাচে ১৩৬ রানে অলআউট হওয়া শ্রীলঙ্কাকে ১০ উইকেটে হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

শনিবার টস হেরে আগে ব্যাট করতে নামা শ্রীলঙ্কা নিউজিল্যান্ডের পেসারদের সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করে শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যান। ৬০ রানের মধ্যেই ৬ উইকেট হারানো লঙ্কানরা তুলতে পারে মাত্র ১৩৬ রান। মামুলি লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১৭ ওভারেই কোনো উইকেট না হারিয়ে তা টপকে যায় কিউইরা।

ছোট লক্ষ্যে খেলতে নামা নিউজিল্যান্ডের দুই ওপেনার মার্টিন গাপটিল ও কলিন মুনরো আত্মবিশ্বাসের সাথে খেলতে থাকে। যদিও চতুর্থ ওভারেই ক্যাচ তুলেছিলেন মুনরো। তবে সেটা ধরতে ব্যর্থ হয় শ্রীলঙ্কা।

এরপর লঙ্কানদের আর কোনো সুযোগই দেয়নি কিউইরা। দুই ব্যাটসম্যান মিলেই করে ফেলেন প্রয়োজনীয় রান। এ জন্য তারা খরচ করেন ৯৭ বল। এ সময় মার্টিন গাপটিল ৫১ বলে ৮ চার আর ২ ছয়ে করেন ৭৩ রান। তার সঙ্গী মুনরো ৪৭ বলে ৬ চার আর ১ ছয়ে করেন ৫৮ রান।

এর আগে প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই প্রথম উইকেট হারিয়ে বসে লঙ্কানরা। ম্যাট হেনরির বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন লাহিরু থিরামান্নে। আউট হওয়ার আগে তিনি করেন ৪ রান।

এরপর ৪২ রানের একটি জুটি গড়েন কুশাল পেরেরা ও দিমুথ করুনারত্নে। তবে ২৪ বলে ২৯ রান করে পেরেরা ম্যাট হেনরির শিকার হলে ভাঙে এই জুটি। তখন চলছিল নবম ওভার। ওই ওভারের পরের বলেই ক্রিজে নতুন আসা জীবন মেন্ডিস বিদায় নেন। এতে ৪৬ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে শ্রীলঙ্কা।

এই ধাক্কা সামলে উঠতে না উঠতেই শ্রীলঙ্কা শিবিরে আঘাত হানেন ফার্গুসন। ১২তম ওভারের পঞ্চম বলে তিনি ফেরান ৪ রান করা ধনঞ্জয়া ডি সিলভাকে।

এরপর ১৫তম ওভারের চতুর্থ বলে শ্রীলঙ্কাকে হতাশায় ডোবান কলিন ডি গ্রান্ডহোম। এই মিডিয়াম পেসার ফেরান ০ রান করা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে। ১ ওভার পরেই ফের বিপাকে পড়ে লঙ্কানরা। এবার সাজঘরে ফেরেন জীবন মেন্ডিস।

এতে ৬০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে বসে হাথুরুর শিষ্যরা। এমন অবস্থা থেকে দলকে টেনে তুলেন ওপেন করা করুনারত্নে আর থিসারা পেরেরা। তবে শ্রীলঙ্কাকে তারা লজ্জা থেকে মুক্তি দিতে পারলেও বড় কোনো কিছু করে দেখাতে পারেননি। সান্টেনারের বলে দলীয় ১১২ রানের মাথায় থিসারা পেরেরা ফিরলে স্কোরবোর্ডে আর মাত্র ২৪ রান যোগ করতেই চলে যায় শেষ ৩ উইকেট। তবে ৮৪ বলে ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন করুনারত্নে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: শ্রীলঙ্কা ১৩৬-১০ (২৯.২)।

দিমুথ করুনারত্নে ৫২ (৮৪), কুশাল পেরেরা ২৯ (২৪), থিসারা পেরেরা ২৭ (২৩)।

ম্যাট হেনরি ৭-২৯-৩, লকি ফার্গুসন ৬.২-২২-৩

নিউজিল্যান্ড: ১৩৭-০ (১৬.১)

মার্টিন গাপটিল ৭৩ (৫১), কলিন মুনরো ৫৮ (৪৭)।