২০০ টাকার জন্য মারতেন ক্ষ্যাপ, এখন জাতীয় দলে!

অবশেষে ঘরোয়া ও ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে ভালো পারফরম্যান্সের পুরস্কার পেলেন দিল্লি রঞ্জি দলের ডান-হাতি ফাস্ট বোলার নভদীপ সাইনি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ পফরে ভারত জাতীয় দলে জায়গা হয়েছে তার।

ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে আন্তর্জাতিক সার্কিটে এই উত্থানটা সহজ ছিল না সাইনির জন্য। তেমনই স্থানীয় টুর্নামেন্টে টেনিস বল ক্রিকেট থেকে দিল্লি রঞ্জি দলে সুযোগ পাওয়াটার পথটাও খুব একটা প্রশস্ত ছিল না নভদীপের জন্য।

২০১৭-১৮ রঞ্জি মৌসুমে দিল্লির সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি তিনি। তবে ২০১৩ অবধি চামড়ার বলে ক্রিকেটটাই খেলেননি সাইনি। হরিয়ানার কার্নালে তখন স্থানীয় টেনিস বল টুর্নামেন্টে খেলতেন তিনি। ম্যাচ প্রতি তিনি নিতেন ২০০ টাকা। মাসে এরকম ২০ থেকে ২২টি ম্যাচ খেলে যোগাতেন খরচের টাকা আইপিএলে ব্যাঙ্গালুরুর হয়ে খেলা এই তারকা।

স্থানীয় টুর্নামেন্টে সাইনির গতিতে আকৃষ্ট হয়েছিলেন দিল্লি রঞ্জি দলের প্রাক্তন জোরে বোলার সুমিত নারওয়াল। নারওয়ালের বদান্যতায় কার্নালের স্থানীয় টুর্নামেন্ট থেকে সাইনি ডাক পান দিল্লি রঞ্জি দলের নেট বোলার হিসেবে।

এরপরই মোড় ঘোরে সাইনির জীবনে। দিল্লির নেট সেশনে তৎকালীন অধিনায়ক গৌতম গম্ভীরকে গতিতে কয়েকবার পরাস্ত করেন তিনি। বিনিময়ে পুরস্কারস্বরূপ গম্ভীরের থেকে একজোড়া বুট উপহার পান সাইনি। একইসঙ্গে নিয়মিত তাঁকে দিল্লির নেট সেশনে আসার নির্দেশ দেন গম্ভীর।

নেট বোলার হিসেবে সাইনির পারফরম্যান্সে মুগ্ধ গম্ভীর নির্বাচকদের সঙ্গে কার্যত লড়াই করে তাঁকে দিল্লি রঞ্জি দলে অন্তর্ভুক্ত করান। শেষ অবধি ২০১৩-১৪ মৌসুমে দিল্লির হয়ে রঞ্জি অভিষেক ঘটে হরিয়ানার বছর একুশের সাইনির। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ২০১৭-১৮ মৌসুমে ৮ ম্যাচে ৩৪ উইকেট নিয়ে দিল্লির সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হন।

অবশেষে আসন্ন ক্যারিবিয়ান সফরে টি২০ ও ওয়ানডে দলে সাইনিকে বেছে নেয় নির্বাচক কমিটি। গৌতম গম্ভীরের কথা উঠলে তাই আজও আবেগঘন সাইনি। সাইনি বলেন, আমি নিজেকে বুঝে ওঠার আগে উনি আমাকে চিনেছিলেন। পুরনো দিনগুলোতে ফিরে গেলে তাই এখন হেসে উঠি আমি।