ধোনি যুগের সমাপ্তি, পান্ট যুগের শুরু

এমএস ধোনি নিজেই সরে দাঁড়ানোয় আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে উইকেট কিপিংয়ের মূল দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়েছে ঋষভ পান্টের কাঁধেই। তিন ফরম্যাটেই তাঁকে উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে রাখা হয়েছে। তার সঙ্গে টেস্টে রয়েছেন ঋদ্ধিমান সাহা।

মনে করাই হচ্ছিল আগামী বছর টি-২০ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে পন্টকেই বেছে নেওয়া হবে। সেখানে ধোনি নিজেই সরে দাঁড়ানোয় নির্বাচকদের সুবিধেই হয়েছে। দল ঘোষণা করার সময় সে কথা বুঝিয়েও দিলেন প্রধান নির্বাচক এমকে প্রসাদ।

তিনি জানিয়ে দেন‌ ভবিষ্যতের উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে পন্টকে তৈরি করতে হবে। যে কারণে ওয়ার্কলোডের কথাকে পিছনে রেখে তিন ফরম্যাটেই তাঁকে রাখা হয়েছে।

এর মানে দাঁড়াল ভারতের ক্রিকেটে ধোনি যুগের অবসান ঘটতে যাচ্ছে। এখন শুরু হবে পান্ট যুগের। ভারতের হয়ে ৯০ টেস্টে প্রায় ৫ হাজার রান করেছেন ধোনি। ওয়ানডেতে ৩৫০ ম্যাচে আছে ১০ হাজার ৭৭৩ রান।

টি-২০ তে ৯৮ ম্যাচে আছে ১৬১৭ রান। সব মিলিয়ে তিন ফরম্যাটে বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ফিনিশারের রান ১৭ হাজারেরও বেশি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে খুব একটা কথা বলছে না ধোনির ব্যাট। বিশ্বকাপের আগ থেকেই তাকে বাদ দেয়ার একটা গুঞ্জন উঠে। তবে অভিজ্ঞতা বিবেচনায় পান্টকে বাদ দিয়ে তাকেই দলে নেয়া হয়।

তবে বিশ্বকাপে পুরোপুরি ব্যর্থ ধোনি। রান পেলেও তার স্ট্রাইকরেট ছিল নিম্নগতির। যে কারণে বিশ্বকাপ শেষেই তার অবসর নিয়ে কথা উঠে। এমনকি তাকে বোর্ড থেকেও চাপ প্রয়োগ করা হয়। তবে অবসর না নিয়ে ২ মাসের জন্য স্বেচ্ছা নির্বাসন নেন তিনি।

দল ঘোষণার সময় এমএসকে প্রসাদ বলেন, ধোনি এই সিরিজে খেলছে না। বিশ্বকাপ পর্যন্ত আমাদের একটা রোডম্যাপ ছিল। এর পাশাপাশিও আমাদের কিছু পরিকল্পনা ছিল। এবং আমরা চাই পান্টকে তৈরি করতে, এই মুহূর্তে সেটাই পরিকল্পনা। প্রথম এগারোয় না আসার মতো কিছু ভুল করেনি পান্ট।

ধারণা করা হচ্ছে ধোনি অবসর নেবেন খুব শিগগিরই। ভারতে কোনো সিরিজ হলেই সে সিরিজ খেলে ভারতকে বিদায় জনাবেন ইতোমধ্যেই টেস্ট থেকে অবসর নেয়া এই তারকা।