রোহিত শর্মার বিশ্বরেকর্ড, উড়ছে ভারত

কোনোমতেই থামানো যাচ্ছে না রোহিত শর্মাকে। দীর্ঘদিন টেস্ট দলে উপেক্ষিত হওয়ার পর ওপেনার হিসেবে ফিরেই একের পর এক সেঞ্চুরি মেরে যাচ্ছেন। প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে সেঞ্চুরির পর তৃতীয় টেস্টেও দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের অসহায় করে তুলে নিয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরি।

এছাড়া রাহানেও সেঞ্চুরি পেয়েছেন তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে। এই দুইজনের ব্যাটে ভর করে বিশাল সংগ্রহ দাড় করাচ্ছে আগেই দুই টেস্ট জিতে সিরিজ নিশ্চিত করা ভারত।

সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে বিশ্বের প্রথসারির ব্যাটসম্যানদের মধ্যে নিজেকে তালিকাভুক্ত করেছেন অনেক আগেই। কিন্তু পাঁচদিনের ক্রিকেটে তাঁর পারফরম্যান্স চলতি সিরিজের আগে মোটেই তার নামের প্রতি সুবিচার করছিল না। অগত্যা ওপেনার হিসেবেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে চ্যালেঞ্জটা গ্রহণ করলেন তিনি। প্রত্যুত্তরে জবাবটা যেভাবে দিলেন তাতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে চলতি সিরিজে যেন টেস্ট ক্রিকেটে নবজন্ম হল রোহিত শর্মার।

ভাইজ্যাকে প্রথম টেস্টে জোড়া শতরানের পর পুণে টেস্টে ব্যর্থ হয়েছিলেন ঠিকই। কিন্তু মি: ধারাবাহিক রোহিত ফের নিজের ক্লাস চেনালেন রাঁচি টেস্টে। রাবাদা-নর্তজের বিষাক্ত ইনস্যুইংগার গুলো শনিবার যখন সমস্যায় ফেলছিল ময়াঙ্ক-পূজারাদের। ঠিক তখন দলের বিপদসংকুল পরিস্থিতিতে চোয়াল চেপে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন হিটম্যান। ওপেনার হিসেবে দিয়েছিলেন অগাধ দায়িত্ববোধের পরিচয়। আর ক্রিজে একবার থিতু হয়ে যেতেই চতুর্থ উইকেটে রাহানেকে নিয়ে কাটিয়ে দিয়েছিলেন দিনের বাকিটা সময়। ৩৯ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা দলকে দিনের শেষে দাঁড় করিয়ে দিয়েছিলেন অ্যাডভান্টেজ পরিস্থিতিতে।

পাশাপাশি টেস্ট ক্রিকেটে ষষ্ঠ শতরান করে শনিবারই কিংবদন্তি গাভাস্করকে ছুঁয়ে ফেলেছিলেন ‘হিটম্যান’। রাঁচিতে শনিবারের অপরাজিত শতরানকে ক্যারিয়ারের অভিষেক ডাবল টনে কনভার্ট করলেন মুম্বাইকার ব্যাটসম্যান। এতে ঘরের মাটিতে তার ব্যাটিং গড় ১০০ এর উপরেই থেকে গেল।

সেইসাথে গড়েছেন এক টেস্ট সিরিজে সর্বোচ্চ ছয় মারার বিশ্বরেকর্ড। তবে সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে রোহিত সেঞ্চুরি হাঁকান ছয় মেরে। এরপর ডাবল সেঞ্চুরিও হাঁকান ছয় মেরে। ইতিহাসে এই প্রথম কোনো ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি ও ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকালেন ছয় মেরে।

শেষ পর্যন্ত তিনি আউট হন ২৫৫ বলে ৬ ছয় ও ২৮ চারে ২১২ রান করে। ভারতও ইতোমধ্যেই তুলে ফেলেছে ৬ উইকেটে ৪৩৮ রান। মানে এই টেস্টও জিততে চলেছে তারা।