বাংলাদেশের ক্রিকেট নিষিদ্ধের চেষ্টা হয়েছিল: পাপন

ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবিতে ডাকা ধর্মঘটের বিষয়টিকে চক্রান্ত মনে করছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন।

তিনি বলেন, ভারত সফর বাতিল করার জন্য একটি চক্র ষড়যন্ত্রে নেমেছে। তাদের সাথে বোর্ড বা খেলোয়াড়দের কেউ কেউ জড়িত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

মঙ্গলবার দুপুরে বিসিবির জরুরি সভার পর সংবাদ সম্মেলনে পাপন বলেন, আমার বিশ্বাসই হচ্ছে না আমাদের খেলোয়াড়দের কাছ থেকে এমন কিছু হতে পারে। তারা আমাদের এ ব্যাপারে আগে কিছুই জানায়নি।

নাজমুল হাসানের মতে, এই ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে বেশ আগে থেকে। এমনকি আইসিসির কাছে অভিযোগ করে বাংলাদেশকে নিষিদ্ধ করারও নাকি চেষ্টা হয়েছিল বলে জানান তিনি, বাংলাদেশ ক্রিকেটকে নড়বড়ে করে দেওয়ার জন্য ষড়যন্ত্র চলছে, এটা সবাই বুঝে, জানে। ওরা প্রথমে বিসিবি বা আমাদের আক্রমণ করে বা অন্য পরিচালকদের আক্রমণ করে (ক্যাসিনো–কাণ্ডে বিসিবির একজন পরিচালক গ্রেপ্তার) বাইরে তথ্য পাঠানোর। বহু চেষ্টা হয়েছে আইসিসির কাছ থেকে নিষেধাজ্ঞা আনার। জিম্বাবুয়ের মতো আমাদের বোর্ডকেও সাসপেন্ড করাতে চেয়েছে।

সেটিতে সফল না হয়েই ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে বলে মনে করেন বিসিবি সভাপতি, সেটিতে সফল না হয়ে দ্বিতীয় ধাপে ক্রিকেটারদের ব্যবহার করছে। হ্যাঁ, ভারত সফরে যদি না যায়, তাহলে আইসিসি নিশ্চয় প্রতিক্রিয়া দেখাবে। আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট করায় ওরা তাই কিছুটা হলেও সফল হয়েছে।

আর এর পেছনে কে কাজ করছে, তাঁকে খুঁজে বের করা হবে বলে জানিয়েছেন নাজমুল হাসান।

তিনি আরও যোগ করেন, ওদের যদি কিছু বলার থাকে, তাহলে তো বলার কথাই আমাকে। ওদের বেতন বাড়িয়েছি। বিশ্বকাপের পর ২৪ কোটি টাকা বোনাস দিয়েছি। টাকার জন্য তারা খেলা বন্ধ করে দেবে? ওদের সুবিধা বাড়ানো ছাড়া তো কিছু করিনি। কিন্তু টকশো মিডিয়ার খবরে মনে হয়েছে ওদের আমরা শেষ করে ফেলেছি। এতো সম্পর্ক থাকার পরেও আমাদের কিছু বললো না কেন। এটা পূর্বপরিকল্পিত।