ব্যাটিং স্বর্গে মামুলি সংগ্রহ বাংলাদেশের

ভারতের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টি-২০ তে আগে ব্যাট করতে নেমে দারুণ শুরু করলেও মাঝপথে খেই হারিয়ে মাঝারি সংগ্রহ গড়েছে বাংলাদেশ। ৬ উইকেট হারিয়ে টাইগাররা তুলেছেন ১৫৩ রান। তবে রাজকোটের মতো ব্যাটিং পিচে এই রান নিতান্তই মামুলি।

এর আগে যে দুটি ম্যাচ এখানে হয়েছে দুই ম্যাচেই ২০০ পেরিয়েছে। বাংলাদেশের শুরুর ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছিল রান ২০০ না হলেও ১৯০ হবে। কারণ প্রথম ৬ ওভারেই নাইম শেখ আর লিটন দাস তুলেন ৫৪ রান।

এরপরই হঠাৎ ছন্দপতন। অষ্টম ওভারে হাস্যকর ভাবে রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন লিটন। যদিও এর আগে তিনি দুইটি জীবন পেয়েছিলেন। তবে এরপরও নিজের ইনিংসকে বড় করতে পারেননি।

তিনি সাজঘরে ফেরেন ২১ বলে ২৯ রান করে। তখন বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৬৩। এরপর সৌম্যকে নিয়ে জুটি গড়েন নাইম। তবে সে জুটিও বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। ১১তম ওভারের তৃতীয় বলে শ্রেয়াশ আইয়ারকে ক্যাচ দেন নাইম। সুন্দরের শিকার হওয়ার আগে ৩১ বলে করেন ৩৬ রান।

বাকি সময়টা শুধু হতাশাতেই কেটেছে বাংলাদেশের। সৌম্য সরকার ও রিয়াদ ব্যাট চালালেও বাকিরা খেলেছেন টেস্ট মেজাজে। মুশফিকুর রহিম ৬ বলে করেছেন ৪ রান। তখন বাংলাদেশের স্কোর ছিল ১২ ওভারে ৩ উইকেটে ৯৭।

এর কিছুক্ষণ পরই ফিরেছেন ২০ বলে ৩০ রান করা সৌম্য সরকার। আফিফ হাসান ৮ বলে করেছেন ৬ রান, মোসাদ্দেক হোসেন ৯ বলে ৭ রান ও বিপ্লব ৫ বলে ৫ রান। শেষদিকে মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ ২১ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলেছেন। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ করেছে ৬ উইকেটে ১৫৩ রান।

অথচ খুব সহজেই হতে পারতো ১৮০ থেকে ১৯০ রান। মূলত ব্যাটসম্যানদের স্লো ব্যাটিং আর স্ট্রাইক রোটেট না করতে পারাই ভুগিয়েছে বাংলাদেশকে। ফলে ১৫৩ রানেই থামতে হয় বাংলাদেশকে।

৪ ওভারে ২৮ রান দিয়ে সর্বোচ্চ দুইটি উইকেট নেন যুবেন্দর চাহাল।