লঙ্কানদের উড়িয়ে দিয়ে সেমি-ফাইনালে বাংলাদেশ

বাঁচা-মরার লড়াইয়ে অন্য এক বাংলাদেশ দলকে দেখা গেল। জামাল ভূইয়া, ইয়াসিন খানদের ছাড়াই আক্রমণাত্মক ফুটবলের পসরা মেলে শঙ্কার কালো মেঘ উড়িয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের সেমি-ফাইনালে উঠল জেমি ডের দল।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে টিকে থাকার এ ম্যাচের শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হয় টাইগাররা। ১৮ মিনিটে মতিন মিয়ার গোলে লিড পায় বাংলাদেশ। মানিকের বাড়িয়ে দেয়া বল থেকেই এগিয়ে যাওয়া গোলটি করেছেন মতিন।

জামালসহ প্রথম ম্যাচের একাদশ থেকে চারজন আজ মাঠের বাইরে। জেমির চার পরিবর্তনের দলটি দর্শকদের প্রথমার্ধে দর্শক মাতিয়েই রেখেছে।

২১তম মিনিটে স্বাগতিকদের আরেকটি দারুণ সুযোগ নষ্ট হয়। ডান দিক দিয়ে একক প্রচেষ্টায় গোল করতে গিয়ে গোলরক্ষকের গায়ে মারেন ইব্রাহিম। বাঁ দিকে তখন ফাঁকায় ছিলেন সুফিল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে শ্রীলঙ্কার ফরোয়ার্ড রাজ্জাক আহমেদ ওয়াসিমের শট অল্পের জন্য ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। ৫১তম মিনিটে বাংলাদেশের সোহেল রানা ডি-বক্সে ঢুকে ভালো একটি সুযোগ নষ্ট করেন ক্রসবারের ওপর দিয়ে মেরে।

৫৮তম মিনিটে জোহার মোহাম্মদ জারওয়ানের শট ক্রবারের ওপর দিয়ে গেলে শ্রীলঙ্কার হতাশা বাড়ে। দুই মিনিট পর সুফিলকে তুলে নিয়ে মামুনুলকে নামান ডে।

একক প্রচেষ্টায় দুর্দান্ত এক গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে মতিন। ৬৪তম মিনিটে মাঝমাঠ থেকে জুদে সুপানের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা এই ফরোয়ার্ড বুলেট গতির দৌড়ে ঢুকে পড়েন ডি-বক্সে। এরপর গোলরক্ষককে কাটিয়ে নিখুঁত টোকায় জাল খুঁজে নেন। মেতে ওঠে বঙ্গবন্ধুর গ্যালারি।

৮৩তম মিনিটের গোলে জয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের। বাঁ দিক থেকে রাকিব হোসেনের ক্রসে ইব্রাহিম গোলমুখ থেকে সহজেই লক্ষ্যভেদ করেন।

শেষ দিকে ফাউল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন তপু। এরপর রাকিবের বুলেট গতির শট গোলরক্ষক ফিস্ট করে ফেরালে ব্যবধান আর বাড়েনি। তাতে অবশ্য কমেনি বাংলাদেশের জয়োৎসব।