‘শুধু মুশফিকের বেলায় পুরো পরিবার কান্নাকাটি করবে নাকি’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ক্রিকেটারদের সুযোগ দিয়েছিল পাকিস্তান সফরকে ‘হ্যাঁ’ কিংবা ‘না’ বলার। মুশফিকুর রহিম ‘না’-এর পাশে টিক মেরেছিলেন। তাঁর সতীর্থরা অবশ্য দুবার পাকিস্তান সফর করে এসেছেন।

নিরাপত্তা নিয়ে পরিবার শঙ্কিত বলে বাংলাদেশ দলের প্রথম দুই দফার পাকিস্তান সফরে যাননি মুশফিক। বিসিবি সভাপতি তখন বলেছিলেন, পাকিস্তানে যেতে কাউকে জোর করা হবে না এবং ক্রিকেটারদের সবার সিদ্ধান্তের প্রতি পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

কিন্তু এখন বোর্ড সভাপতির কণ্ঠে ফুটে উঠল অন্য সুর। তৃতীয় দফার সফরে আগামী এপ্রিলের শুরুতে পাকিস্তানে যাওয়ার কথা বাংলাদেশ দলের। মঙ্গলবার মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নাজমুল হাসান বললেন, এবার পাকিস্তানে তারা মুশফিককে চান।

বিসিবি সভাপতি বলেন, আশা করছি সে যাবে। সে শুধু না, প্রতিটি চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড়ের যাওয়া উচিত (বাংলাদেশের হয়ে বিদেশ সফরে)। খেলোয়াড়দের দেশের কথাও চিন্তা করতে হবে। সব সময় নিজের কথা চিন্তা করলে হবে না। যেটি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি। প্রত্যেকের কাছেই পরিবারের কথা গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দেশটা তার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

এরপরই বোর্ড সভাপতি টেনে আনলেন মাহমুদউল্লাহর প্রসঙ্গ। মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহর স্ত্রী দুই বোন। সেদিকে ইঙ্গিত করে বোর্ড সভাপতি সংশয় প্রকাশ করলেন, মুশফিকের পরিবার সত্যিই শঙ্কিত কিনা।

তিনি বলেন, একটা ভয় ছিল (পাকিস্তান সফর নিয়ে)। আমাদের ভয় ছিল। যারা গিয়েছে, তাদের ভয় ছিল না? কিন্তু এই সফরের পর… আমাদের ছেলেরা যখন খেলে আসছে, তার বাড়ির লোকও তো খেলে আসছে! আমি বলতে চাচ্ছি, রিয়াদের কিছু হলে কিছু হবে না, শুধু ওর (মুশফিক) বেলায় পুরো পরিবার কান্নাকাটি করবে নাকি? চিন্তিত নাকি? এরকম তো আমি বিশ্বাস করি না। রিয়াদের কাছ থেকেও তো শুনতে পারে যে কী হয়েছে, সতীর্থদের কাছ থেকে শুনতে পারে, আমাদের কাছ থেকে শুনতে পারে।

সবশেষে মুশফিককে পাকিস্তান সফরে পাওয়ার আশাবাদ আবার শোনালেন বিসিবি প্রধান।