নড়বড়ে নব্বইয়ে আউট তামিম, বিপাকে বাংলাদেশ

নড়বড়ে নব্বইয়ের বৃত্তে আটকা পড়ে গেছেন তামিম ইকবাল। টেস্ট ক্যারিয়ারের ১১৯ ইনিংসে যেখানে মাত্র একবার আউট হয়েছিলেন নব্বইয়ের ঘরে, সেখানে গত তিন ইনিংসের দুইবার নব্বইয়ের ঘরে থামলেন দেশসেরা এ ওপেনার।

শ্রীলঙ্কার করা ৪৯৩ রানের জবাবে শুরু থেকেই সাবলীল ব্যাটিং করছিলেন তামিম। তার ব্যাটে ভর করেই পাল্টা জবাবটা বেশ ভালোভাবে দিচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ দিকে খেই হারিয়েছে টাইগাররা। দ্রুত তিন উইকেট হারিয়ে বেশ বিপাকেই আছে।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ইনিংসের ৬২ ওভার শেষে বাংলাদেশ দলের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২১৪ রান। ফর্মে থাকা অধিনায়ক মুমিনুল হক খেলছেন ৪৭ রানে।

আজ ম্যাচের তৃতীয় দিন মাত্র ১৫ মিনিট ব্যাটিং করেই ইনিংস ঘোষণার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে স্বাগতিকরা। জবাবে খেলতে নেমে টানা তৃতীয়বারের মতো ইনিংসের প্রথম ওভারেই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে শুরু করেন তামিম। আত্মবিশ্বাস নিয়ে শুরু থেকেই লঙ্কান বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকেন তিনি।

তামিমের সাবলীল ব্যাটিংয়ে সাহস পান প্রথম ম্যাচে ব্যর্থ হওয়া সাইফ হাসানও। দুজনের ইতিবাচক ব্যাটিংয়ে ১৩ ওভারেই চলে আসে জুটির ৫০ রান। রমেশ মেন্ডিসের করা ইনিংসের ১৫তম ওভারের প্রথম দুই বলে জোড়া বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৪৯ রানে পৌঁছে যান তামিম। সেই ওভারের পঞ্চম বলে ১ রান নিয়ে পূরণ করেন ক্যারিয়ারের ৩১তম হাফসেঞ্চুরি।

মনে হচ্ছিল উদ্বোধনী জুটি অবিচ্ছিন্ন থেকেই মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাবে বাংলাদেশ। কিন্তু বিধিবাম! বিরতির আগে দুই ওভারে সাজঘরের পথ ধরেন সাইফ ও নাজমুল হোসেন শান্ত। অভিষিক্ত জয়াবিক্রমের বলে সেকেন্ড স্লিপে ধরা পড়েন ২৫ রান করা সাইফ।

রমেশের করা পরের ওভারের শেষ বলে প্রথম স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন নাজমুল শান্ত। প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ক্যারিয়ার সেরা ১৬৩ রানের পর টানা দুই ইনিংসেই শূন্য রানে আউট হলেন শান্ত। টেস্ট ক্রিকেটে যা বিরল নজিরই বটে।

দিনের দ্বিতীয় সেশনে নতুন করে ইনিংস গড়ায় মনোযোগ দেন তামিম ও মুমিনুল। দুজন মিলে রান যেমন নিচ্ছিলেন নিয়মিত, তেমনি নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে বারবার মনে ভয় ঢোকাচ্ছিলেন জয়াবিক্রম ও রমেশ। যার ফল তারা পেয়ে যায় ৪৪তম ওভারে। তামিমের বিদায়ে ভাঙে ৫২ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি।

এরপরর মুশফিককে সাথে নিয়ে জুটি গড়েন মুমিনুল। কিন্তু সে জুটিও বেশিক্ষণ টিকেনি। ৬২তম ওভারে ৬২ বলে ৪০ রান করে বিদায় নেন মুশফিক। এরপরই দেয়া হয় টি ব্রেক। বাংলাদেশ এখনো পিছিয়ে ২৭৯ রানে।