ছক্কার বিশ্বরেকর্ড লুইসের, বিধ্বস্ত অস্ট্রেলিয়া

গেইলকে পেরিয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ছক্কার দ্রুততম সেঞ্চুরিয়ান এখন লুইস। এই মাইলফলক ছোঁয়ার দিনে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছে ক্যারিবিয়ানরা। তাতে ৫ ম্যাচের সিরিজ ৪-১ এ জিতে নিয়েছে পোলার্ড বাহিনী।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে লুইসেই এই কীর্তি মাঠে দাঁড়িয়েই দেখেছেন ক্রিস গেইল।

বাংলাদেশ সময় শনিবার সকালের এই ম্যাচে ৩৪ বলে ৭৯ রানের সাইক্লোন ইনিংস খেলেন লুইস। মার্সের বলে সাজঘরে ফেরার আগে ৯টি ছক্কা হাঁকান এ ক্যারিবীয় ওপেনার।

তার আগেই গেইলের ছক্কার রেকর্ডটি নিজের দখলে নেন লুইস। মার্শের আগের ওভারে মিচেল সোয়েপসনের বলে মারা অষ্টম ছক্কায় আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে একশ ছক্কা হয়ে যায় লুইসের।

মাত্র ৪২ ইনিংসেই একশত ছক্কা হাঁকানোর গৌরব অর্জন করে নিলেন এ ক্যারিবীয় বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

শনিবার ভোরে হওয়া ম্যাচটিতে আগে ব্যাট করে এভিন লুইসের ঝড়ে ১৯৯ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। জবাবে জয়ের সম্ভাবনা জাগালেও শেষ পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস থামে ৯ উইকেটে ১৮৩ রানে। ক্যারিবীয়রা পায় ১৬ রানের জয়।

ওপেনার এভিন লুইস খেলেছেন ৩৪ বলে ৪ চার ও ৯ ছয়ের মারে ৭৯ রানের টর্নেডো ইনিংস। তার ব্যাটে ভর করেই মূলত বড় সংগ্রহ পেয়েছে ক্যারিবীয়রা।

এর বাইরে আন্দ্রে ফ্লেচার ১৬ বলে ১২, ক্রিস গেইল ৭ বলে ২১, লেন্ডল সিমনস ২৫ বলে ২১, নিকোলাস পুরান ১৮ বলে ৩১ ও হেইডেন ওয়ালশ জুনিয়র ৮ বলে ১২ রানের ইনিংস খেলে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দেয়ার পথে অবদান রাখেন।

জবাবে খেলতে প্রথম ওভারে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফিরে যান জশ ফিলিপ। দ্বিতীয় উইকেটে আশা জাগান সিরিজে অসিদের একমাত্র জয়ের নায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ও মিচেল মার্শ। দুজন মিলে মাত্র ৩.১ ওভারে যোগ করেন ৩৭ রান।

অতিরক্তি আক্রমণাত্মক খেলতে খেলতে আন্দ্রে রাসেলের হাতে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফেরেন মার্শ। তার ব্যাট থেকে আসে ১৫ বলে ৩০ রান। এরপর রানরেটের সঙ্গে পাল্লা দিয়েই খেলছিলেন ফিঞ্চ, ময়সেস হেনরিকসরা। কিন্তু লম্বা সময় উইকেটে থাকতে পারেননি।