ইরাকে তুরস্কের হামলা, যুদ্ধের আশঙ্কা

ইরাকের কুর্দিস্তানে বিমান হামলা চালিয়েছে তুরস্ক। তবে এ হামলার কতজন হতাহত হয়েছে তা জানা যায়নি।

তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রী হুলুসি আকর বলেন, ইরবিলে শয়তানি হামলার পর আমরা কান্দিলে ব্যাপক বিমান হামলা চালিয়েছি। সন্ত্রাসীরা একেবারে নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত তাদের বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে এবং আমরা আমাদের শহীদদের প্রতিশোধ নেব।

তুরস্কের সীমান্তবর্তী ইরাকের স্বায়ত্তশাসিত কুর্দিস্তান অঞ্চলের রাজধানী ইরবিলের তুর্কি কনস্যুলেটের উপপ্রধান গত বুধবার একটি রেস্তোরাঁয় দুপুরের খাবার খাচ্ছিলেন। হঠাৎ তিনজন বন্দুকধারী তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায়। এতে তুর্কি কূটনীতিক ও একজন ইরাকি নাগরিক নিহত হন।

এ হামলার পেছনে তুরস্কের বিচ্ছিন্নতাবাদী কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) হাত থাকতে পারে বলে ইরাকের অনেক বিশেষজ্ঞ ধারণা করছেন।

তুর্কি কূটনীতিককে হত্যার পর নেওয়ার হুমকি দিয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন টুইট করেছিলেন, এই হামলায় জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে।

তবে পিকেকের সশস্ত্র শাখার মুখপাত্র গত বুধবারের বন্দুক হামলায় তাদের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে।

এদিকে, এ হামলার প্রেক্ষিতে ইরাকে যুদ্ধের আশঙ্কা করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে বিমান হামলার প্রতিশোধ নিতে পিকেকে সশস্ত্র হামলা চালাতে পারে।