চাঁদের দিকে পাড়ি দিল ভারতের চন্দ্রায়ন-২

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে চাঁদের উদ্দেশে পাড়ি দিয়েছে ভারতের চন্দ্রায়ন-২। অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধওয়ন মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রে ইসরোর বিজ্ঞানীরা যানটির সফল উৎক্ষেপণ করেছেন।

সোমবার (২২ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে সফল উৎক্ষেপণ হয় চন্দ্রযানের।

গত সপ্তাহে চন্দ্রযানটির চাঁদের উদ্দেশ্যে পাড়ি দেওয়ার কথা ছিল। তবে উড্ডয়নের ঠিক ৫৬ মিনিট আগে দেখা দেয় প্রযুক্তিগত সমস্যা। ত্রুটি ধরা পড়ায় কাউন্টডাউন থামিয়ে দিয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা। তবে এ বার উৎক্ষেপণের আগে একাধিক টুইটে ইসরো জানাচ্ছে, এখনও পর্যন্ত সব কিছু সঠিক পথেই এগোচ্ছে। চাঁদে অবতরণ এখন সময়ের পালা।

চাঁদের মাটিতে কি সত্যিই পানি আছে? অথবা পানি থাকার মতো পরিবেশ বা খনিজ? মূলত সেই প্রশ্নেরই উত্তর খুঁজবে ভারতের মুন মিশন-২। অভিযান সফল হলে ভারত বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ দেশ হিসাবে চাঁদে ‘পা’ রাখবে। আমেরিকা, রাশিয়া এবং চিন একাধিক বার একই ধরনের অভিযান করেছে।

শ্রীহরিকোটা থেকে যাত্রা শুরুর পরে দুই মাস ধরে দীর্ঘ ৩.৮৪ লক্ষ কিলোমিটার পথ পারি দেওয়ার পর চন্দ্রায়ণ-২ অবতরণ করবে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে। এর অরবিটার, ল্যান্ডার এবং রোভার সব যাবতীয় যন্ত্রের ডিজাইন তৈরি হয়েছে ভারতেই।

৬৪০ টনের জিএসএলভি এমকে (তৃতীয়) এই চন্দ্রযানটি পরিচিত "বাহুবালী" নামেও। রকেটটি ১৫ তলা ভবনের সমান উঁচু। এক হাজার কোটি টাকা খরচ করে বানানো চন্দ্রযানটি ১.৪ টন ল্যান্ডার বিক্রমকেও বহন করবে। যা অবতরণের সময় চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে দুই ক্রটারের মাঝখানে ২৭ কিলোগ্রাম রোভার প্রজ্ঞানকে স্থাপন করবে।

এই প্রসঙ্গে ইসরোর প্রধান কে শিভন বলেন, এই ধরনের উন্নত মানের ল্যান্ডার এই প্রথম ভারতে তৈরি হল। এই অভিযান সফল হলে ভারত হবে বিশ্বের চতুর্থ দেশ যে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে পৌঁছোনোর কৃতিত্ব অর্জন করবে।

ভারতের আগে এই অভিযানে সফল হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও চীন। চলতি বছরের শুরুতে ইসরাইল চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে  এই অভিযানে।