কাশ্মীর নিয়ে চটেছে চীন, ভারতকে কড়া হুশিয়ারি

কাশ্মীর ইস্যুতে এবার বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে ভারত। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়াকে একতরফা বলে বিবৃতি দিয়েছে চীন।

শুক্রবার চীন সফরে গিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। এরপর আজ শনিবার চীনের বিদেশ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে বসেন তিনি। এরপরই এমন বিবৃতি দেয় চীন।

বিবৃতিতে বলা হয়,  কাশ্মীরের ইস্যুতে একতরফা সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। এতে ওই অঞ্চলের স্থিতিবস্থা বিনষ্ট হবে। সেই সাথে সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে।

তারা বলে, মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্তে চীনের সার্বভৌমত্বে আঘাত লেগেছে। বলা হয়, ‘একতরফা’ সিদ্ধান্তে কেউ যেন ওই এলাকার স্থিতাবস্থা নষ্ট না করে। তাহলে এর পরিণাম শুভ হবে না।

চীন সরাসরি ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদের উল্লেখ না করলেও লাদাখ নিয়ে প্রথম দিন থেকেই নিজেদের আপত্তির কথা স্পষ্ট জানিয়ে এসেছে তারা। জম্মু-কাশ্মীরের সঙ্গে লাদাখকেও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করেছে মোদি সরকার। সরাসরি বিবৃতিতে তখনই বিইজিং জানিয়েছিল, এতে চীনের সার্বভৌমত্বে আঘাত লেগেছে। এই অবস্থায় পাক বিদেশমন্ত্রীকে পাশে রেখে চীনের এই বিবৃতি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

ভারতের কূটনীতিকরা মনে করছেন, চীনের এই বার্তা ভারতের জন্য বিপদের। এটা পাকিস্তানের কাছে কূটনৈতিক হার।

এদিকে, তিন দিন পরেই ভারতের নতুন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর প্রথম চীন সফরে যাচ্ছেন। ১১ তারিখ দ্বিপাক্ষিক ভাবে এই সমস্যা নিয়ে আলোচনা করবেন জয়শঙ্কর। দেওয়া হবে যৌথ বিবৃতিও।