নারী মেয়রকে রং দিয়ে গোসল করিয়ে চুল কেটে দিল জনতা

বলিভিয়ায় অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ছড়িয়ে যাওয়া আন্দোলনে সরকার সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষে দু’জন বিরোধী আন্দোলনকারী নিহত হওয়ার গুঞ্জনে স্থানীয় মেয়রকে রং লাগিয়ে মাথার চুল কেটে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

সম্প্রতি বলিভিয়ার একটি শহরের মেয়রের সঙ্গে এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম।

খবরে বলা হয়, মুভমেন্ট ফর সোশ্যালিজম (ম্যাস পার্টি) পার্টির পাত্রিসিয়া আরসে নামের ওই মেয়রকে ঘণ্টাখানেক পর ভিনতো শহরের পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

বলিভিয়ার কোচাবাম্বা প্রদেশের ছোট্ট শহর ভিনতো। দেশটিতে অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হওয়া বিতর্কিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রতিবাদে চলছে সরকারবিরোধী আন্দোলন। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে অবরোধ করে রাখা হয়েছে ভিনতো শহরের একটি গুরুত্বপূর্ণ সেতু। অবরোধের সময় সরকার সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষে দু’জন বিরোধী আন্দোলনকারী নিহত হওয়ার গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন বিরোধীরা।

কর্তৃপক্ষ জানায়, সংঘর্ষের ঘটনায় লিমবার্ট গুজম্যান ভাসকুয়েজ নামের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে।

এ ঘটনার জন্য তারা মেয়র আরসেকে দোষারোপ করতে থাকেন। তারা মেয়রকে উদ্দেশ্য করে ‘হত্যাকারী’, ‘হত্যাকারী’ স্লোগান দিতে থাকেন। এসময় মুখোশ পরিহিত এক আন্দোলনকারী মেয়রকে খালি পায়ে রাস্তায় টেনে নিয়ে আসেন। তারা তাকে নতজানু হতে বাধ্য করেন। এরপর কেটে দেওয়া হয় মাথার চুল, শরীরে মেখে দেওয়া হয় লাল রং। আন্দোলনকারীরা তাকে পদত্যাগপত্রে সই করার জন্যও চাপ দিতে থাকে। ঘণ্টাখানেক পরে অবশ্য পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় মেয়রকে। সেখান থেকে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।