শ্লীলতাহানির হাত থেকে রক্ষা করে ৫ জন মিলে ধর্ষণ

চাকরির খোঁজে এসে গণধর্ষণের শিকার ভারতের এক কিশোরী। যে চাকরি দেবে বলেছিল, সে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এ সময় তাকে উদ্ধার করে পাঁচ যুবক। পরে তারাই একটি পার্কে নিয়ে ওই কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

বুধবার নয়ডায় এ ঘটনা ঘটে।

কিশোরীর মায়ের দাবি, একটি প্যাকেজিং কোম্পানির কর্মী রবি তাকে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। সেই বিষয়ে কথা বলার জন্য বুধবার নয়ডার সেক্টর ৬৩-তে ওই কিশোরীকে একটি পার্কে ডাকে রবি। সেখানে কিশোরীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ।

তিনি জানান, কিশোরী বাধা দেওয়ার পরেও থামেনি অভিযুক্ত। এরপর চিত্কার শুরু করে ওই কিশোরী। তার চিত্কার শুনে পার্কেই উপস্থিত দুই যুবক সেখানে দৌড়ে এসে রবির হাত থেকে কিশোরীকে ‘উদ্ধার’ করে। রবিকে মেরে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয় তারা।

কিশোরীকে পেয়ে ওই দুই ‘উদ্ধারকারী’ যুবক তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। এমনকি কিছু ক্ষণ পর তাদের আরও তিন বন্ধুকে সেখানে ডাকে, তারাও কিশোরীকে ধর্ষণ করে। যেখানে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে, বাহোলোলপুর পুলিশ আউটপোস্ট সেখান থেকে মাত্র ৪০০ মিটার দূরে যোগ করেন তিনি।

ঘটনাস্থল থেকে উঠে কোনও রকমে কাছের থানায় যায় ওই কিশোরী। সব ঘটনা জানার পর তত্পর হয় পুলিশ। পার্কে পৌঁছে চার অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়। এখনও দুই অভিযুক্তের খোঁজ চলছে।