হঠাৎ কাতার সফরে এরদোয়ান, চিন্তায় সৌদি আরব

এক বিশেষ সফরে কাতারে পৌঁছেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। তিনি কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

সোমবারের আনুষ্ঠানিক এই সফরে এরদোগান ও তামিমের মধ্যে আঞ্চলিক বিভিন্ন বিষয় এবং দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

আঙ্কারা এবং দোহা পরস্পরের ঘনিষ্ট মিত্র। ২০১৭ সালে উপসাগরীয় দেশগুলো কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর দু’দেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরালো হয়েছে। সে সময় সৌদি আরব, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং মিসর কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আনা হয়।

গত ১৩ নভেম্বর সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং বাহরাইন আকষ্মিকভাবে ঘোষণা দেয় তাদের ফুটবল টিম আসন্ন ‘গালফ কাপ’ ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশ নিতে কাতারে যাবে! অথচ গত দুই বছর ধরে দেশ তিনটি কাতারের সাথে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করে রেখেছে। এমনকি কাতারে যাতায়াতকারী কোনো বিমানকে নিজেদের আকাশসীমা ব্যবহারের অনুমতিও দেয়নি।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ কয়েকদিন আগে জানিয়েছিল, কাতারের পক্ষ থেকে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে নিতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে সৌদি আরবের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এমন সময়ে সৌদির অন্যতম প্রতিপক্ষ তুরস্কের সরকারপ্রধানের সফরে কিছুটা হলেও দুশ্চিন্তা বেড়েছে।

এদিকে সাম্প্রতিক সময়ে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তুর্কি বাহিনীর অভিযানকে সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি প্রকাশ করেছে কাতার। কাতারের সাথে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আমিরাতের সম্পর্ক পূনর্গঠন এবং আমিরাতের সাথে তুরস্কের নতুন করে উত্তেজনার মধ্যেই তুর্কি প্রেসিডেন্ট দোহাতে এলেন। এতে বেশ চিন্তাতেই পড়েছে সৌদি আরব। কারণ সিরিয়া নিয়ে দুই দেশের সম্পর্ক এখন বেশ উত্তাল।