পুলিশের ওপর জুতা বৃষ্টি

ভারতের তেলেঙ্গানার হায়দরাবাদে তরুণী পশু চিকিৎসককে নির্মমভাবে ধর্ষণ করে খুনের পর ক্ষোভে ফুঁসছে ভারত। আর এই ক্ষোভের আঁচ এসে পড়ে হায়দরাবাদ শহরেও।

শনিবার প্রায় শ’দেড়েক বিক্ষোভকারী শাদনগর থানা ঘিরে ফেলেন। এই শাদনগরের কাছেই ৪৪ নম্বর জাতীয় সড়কের কাছে এক কালভার্টের নীচে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় বৃহস্পতিবার ওই তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার হয়।

এই ঘটনা সামনে আসতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন সাধারণ মানুষ। মৃতার বাবা পুলিশের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তোলেন। শনিবার ক্ষোভের স্রোত আছড়ে পড়ে শাদনগর থানায়।

গোটা থানা ঘিরে ধরে প্রবল বিক্ষোভ চলতে থাকে। পুলিশকর্মীদের দিকে তাক করে উড়ে আসে পাথর, চপ্পল। এর মাঝেই ভিড় থেকে দাবি ওঠে অভিযুক্তদের তাঁদের হাতে তুলে দিতে হবে।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, ‘ওদের বেঁচে থাকার অধিকার নেই। পুলিশ কিছু করতে না পারলে আমাদের হাতে তুলে দিক। আমরা বুঝে নেব।’এই প্রসঙ্গে সমাজকর্মী সন্ধ্যা রানী বলেন, ‘এই ঘটনায় সারা দেশের মানুষ স্তম্ভিত।’

অভিযোগ, নিহতের বাবা এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে প্রথমে মামলা নিতে রাজি হচ্ছিল না পুলিশ। সাইবারাবাদ পুলিশ কমিশনারেটের তরফ থেকে জানানো হয়েছে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগে ইতিমধ্যে শামসাবাদ পুলিশ স্টেশনের সাব ইন্সপেক্টর এবং হেড কনস্টেবলকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছে।