মার্কিন সেনাঘাঁটিতে ফের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

ইরাকে আবার মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে এর দায় কেউ স্বীকার না করলেও এক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় এর বিচার চেয়েছে ওয়াশিংটন।

রবিবার রাতে (স্থানীয় সময়) ইরাকে মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে দুটি সামরিক ঘাঁটিতে এক দফা এ হামলা চালানো হয়।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, পাল্টাপাল্টি হামলা–হুমকিতে যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে চলা উত্তেজনার মধ্যে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের উত্তরে একটি ইরাকি বিমানঘাঁটিতে গত রোববার নতুন করে ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়। এতে কোনো মার্কিন সেনা হতাহত না হলেও আহত হয়েছেন ইরাকি চার কর্মকর্তা। যুক্তরাষ্ট্র হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে ইরাকের আইন আল-আসাদ ও এরবিলে ইরাকি সামরিক ঘাঁটিতে ইরানের ২২টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কোনো ইরাকি সেনা হতাহত হননি। তবে হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের অন্তত ৮০ জন ‘সন্ত্রাসী’ নিহত হওয়ার দাবি করেছিল ইরান।

ইরাকি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে দেশটির বার্তা সংস্থা আইএনএ বলেছে, রবিবার বাগদাদ থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে আল–বালাদ বিমানঘাঁটিতে ছোট ধরনের ৮টি কাতিউশা ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে। এর কয়েকটি আঘাত হেনেছে বিমানঘাঁটির একটি রেস্তোরাঁয়। অন্যগুলো আঘাত হানে উড়োজাহাজের রানওয়ে ও বিমানঘাঁটির ফটকে। হামলায় ইরাকের দুই কর্মকর্তা ও দুই পাইলট আহত হন।

এই হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি। এর আগে এ রকম হামলার জন্য ইরান–সমর্থিত ইরাকি সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোকে দায়ী করে যুক্তরাষ্ট্র।

ড্রোন হামলায় মেজর জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিতে এ নিয়ে তিন দফায় হামলা চালানো হয়েছে মার্কিন সেনাবাহিনীর ওপর। প্রথম দুইটি হামলার দায় ইরান স্বীকার করলেও এবারের হামলা নিয়ে তারা মুখ খুলেনি।