ইতালিতে ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

করোনাভাইরাসে ইতালিতে মৃত্যুর মিছিল থামার কোনো নাম নেই। উল্টো যত দিন যাচ্ছে মৃত্যু ততই বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর মিছিলে যোগ হলো আরও ৯৬৯ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ৯ হাজার ১৮৪ জনে।

মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৮৬ হাজার ৪৯৮। সুস্থ হয়েছেন ১০ হাজার ৯৩২ এবং গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৭৩২ জন। একদিনে আক্রান্ত রোগী ৫ হাজার ৯০৯ জন। এ নিয়ে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ৬৬ হাজার ৪১৪ জনে দাঁড়িয়েছে।

এদিকে বিশ্বব্যাপী সর্বশেষ হিসাব বলছে, করোনায় প্রাণহানির সংখ্যা ২৬ হাজার ছাড়িয়েছে আর আক্রান্ত সাড়ে ৫ লাখের বেশি।

চীনে প্রাদুর্ভাব শুরু হলেও ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। সংখ্যাটা ৯৩ হাজার ৪২৭। সেখানে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৩৮৫ জনের। এদিকে সর্বোচ্চ ৯ হাজার ১৮৪ মৃত্যু নিয়ে সবার উপরের স্থানটি ইতালির। সেখানেও আক্রান্তের সংখ্যা ৮৬ হাজার ৪৯৮ জন।

ইতালির মতো অবস্থা দাঁড়িয়েছে স্পেনের। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭৬৯ জন। করোনায় প্রাণহানিতে চীনকে ছাড়িয়ে গেছে ইতালি এবং স্পেন। বৃহস্পতিবার স্পেনে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর ঘোষণা দেয়া হয়েছে। লকডাউন চলছে ইতালিতেও। তবুও লাশের লাইন ছোট হচ্ছে না। ফ্রান্সেও চলছে লকডাউন। গত একদিনে সেখানে ৩৬৫ জনের মৃত্যুর পর সংখ্যাটা এখন ১ হাজার ৬৯৬।

ইউরোপের আরেক কেন্দ্র যুক্তরাজ্যও লকডাউন। সেখানেও গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮১ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছেন ৭৫৯ জনের।

এশিয়ার ইরানের অবস্থা আরও নাজুক হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় ১৪৪ জনের প্রাণহানি হয়েছে; আক্রান্তও প্রায় তিন হাজার। দেশটিতে করোনায় মৃত্যুর তালিকায় নাম উঠেছে ২ হাজার ৩৭৮ জনের। তবে মহামারির মধ্যেও নতুন করে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ওয়াশিংটন।